মোড়ক বদলে বাংলাদেশের মধু বাংলাদেশেই রফতানি করে ভারত

বাংলাদেশ থেকে মধু আমদানি করে নতুন মোড়কে তা আবার বাংলাদেশেই রফতানি করে ভারত। জানালেন, প্রিজম প্রকল্পের সিনিয়র এক্সপার্ট মিস মাতেজা ডামেস্টিয়া

মধু সংগ্রহ
সংগৃহীত ছবি।

গত সোমবার (২৬ নভেম্বর) বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প কর্পোরেশন (বিসিক) ও ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের প্রিজম প্রকল্পের আয়োজনে এক কর্মশালায় মধুর বৈশ্বিক উৎপাদন-বাজার, বাংলাদেশে মধু চাষ এবং উৎপাদনের চিত্র তুলে ধরেন মিস মাতেজা। সেসময় তিনি এসব কথা বলেন।

এ সময় তিনি মধুকে আন্তর্জাতিক বাজারে পরিচিত করাতে আলাদা আলাদা ব্র্যান্ডিং না করে বাংলাদেশি মধু বা মেইড ইন বাংলাদেশ নামে ব্র্যান্ডিং করার পরামর্শ দেন।

তিনি জানান, স্লোভেনিয়া বাংলাদেশ থেকে মধু আমদানি করে তা পরিশোধন করে মেইড ইন স্লোভেনিয়া নামে মধু বাজারজাত করে যা ইউরোপে বেশ জনপ্রিয়। এমনকি ভারতও বাংলাদেশ থেকে মধু আমদানি করে নতুন মোড়কে তা আবার বাংলাদেশেই রফতানি করে। বাংলাদেশ যদি তাদের একক নামে ব্র্যান্ডিং করে তাহলে তারাও এ বাজার ধরতে পারবে।

মিস মাতেজা বলেন, বাংলাদেশে আনুমানিক ২৫ হাজার মৌচাষী আছে যা দিয়ে বছরে মাত্র ৩ হাজার টন মধু উৎপাদিত হয়। এ কারণে চাহিদার প্রায় ৭০ ভাগ মধু আমদনি হয়। তবে উৎপাদন এবং প্রক্রিয়াজাত করণে দক্ষতা বাড়ানো গেলে এই মৌচাষী দিয়ে বছরে ২৫ হাজার টন থেকে ১ লাখ টন পর্যন্ত মধু উৎপাদন করা সম্ভব।

দেশের অভ্যন্তরীণ চাহিদা মিটিয়ে তা বিদেশে রফতানি করা সম্ভব হবে। এজন্য তিনি মৌ চাষীদের এলাকা ও ক্লাস্টারভিত্তিক সংগঠিত করে প্রয়োজনীয় আর্থিক এবং নীতিগত সহায়তা দেবার কথাও সুপারিশ করেন।

এ কর্মশালায় শিল্প মন্ত্রণালয়, বিএসটিআই, বাংলাদেশ বিজ্ঞান ও শিল্প গবেষণা পরিষদ, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর, বন বিভাগ, মধু প্রক্রিয়াজাতকারক-রফতানিকারক, বিসিক, এসএমই ফাউন্ডেশন, গবেষক, বিশেষজ্ঞ, বিভিন্ন অধিদফতর, মৌচাষী এবং মৌচাষীদের সংগঠনগলো অংশগ্রহণ করেন।