রাউন্ডআপ ক্যান্সার ট্রায়াল । ২৮৯ মিলিয়ন ডলার ক্ষতিপূরণের আদেশ আদালতের

যুক্তরাষ্ট্রের সান ফ্রান্সিসকোর সর্বোচ্চ আদালতের জুরি কৃষিজ কোম্পানী মনসান্তোকে গত ১০ আগস্ট, শুক্রবার,  ২৮৯ মিলিয়ন ডলার ক্ষতিপূরণ আদায়ের নির্দেশ দেয়। মামলার বিবরণে জানা যায়, মনসান্তোর উদ্ভিদনাশক (ঘাস) পণ্য রাউন্ডআপ (Roundup) স্প্রে ব্যবহারের ফলে ডোয়ান জনসন নামের একজন স্কুল পরিচ্ছন্নকর্মী নন হডকিন’স লিমপোমা নামের ক্যান্সার আক্রান্ত হন। মামলার বাদী জনসন (৪৬) মনসান্তো (Monsanto) কোম্পানীর বিরুদ্ধে অভিযোগ আনেন, সে বেনিসিয়া স্কুল ডিস্ট্রিকে ২০১২ সালে পরিচ্ছন্নকর্মী হিসেবে চাকুরিরতকালীন ৪ বছরে কোম্পানীর ১৫০ গ্যালনের মতো রাউন্ডআপ (Roundup) স্প্রে  বছরপ্রতি ২০-৩০ বার ব্যবহার করেন, যা পরবর্তীতে ক্যান্সারের কারণ হয়। উল্লেখ্য, ২০১৪ সালে মাত্র ৪২ বছর বয়সে জনসনের ক্যান্সার ধরা পড়ে। এবং ২০১৪ সালে ওই ক্যান্সারকে নন হডকিন’স লিমপোমা (Non Hogdkin’s Lymphoma) বলে শনাক্ত করা হয়।

Roundup
এই সেই মনসান্তর পণ্য রাউন্ডআপ (Roundup)। Source: Reuters
এই রায়কে মনসান্তোর বিপক্ষে আনা হাজার হাজার অভিযোগের পক্ষে নজির (Precedent) হিসেবে দেখা হচ্ছে। এবং রায়কে ইতোমধ্যে মাইলফলক হিসেবে অভিমত দিয়েছেন আন্তর্জাতিক আইন-বিশেষজ্ঞরা

এ-প্রসঙ্গে আমেরিকার সংবাদ মাধ্যম সিএনএন দাবী করেন, শুধু গত বছরেই মনসান্তোর বিরুদ্ধে ৮০০ টার মতো অভিযোগ জমা পড়ে।

এ-পসঙ্গে মনসান্তো দাবী করে আসছে, রাউন্ডআপ (Roundup) স্প্রে কোনোমতেই ক্যান্সারের কারণ নয়। মনসান্তোর ভাইস-প্রেসিডেন্ট স্কট পারট্রিজ রায় পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ‘আজকের রায় ৮০০ বৈজ্ঞানিক গবেষণা ও রিভিউকে পাল্টাতে পারে না।’ এ-ছাড়া আমেরিকান পরিবেশ সংরক্ষণ এজেন্সি ও আমেরিকান জাতীয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরও গ্লাইফোসেইটকে ক্যান্সারের কারণ বলে মনে করে না; বলে দাবী করেন স্কট পারট্রিজ। উল্লেখ্য,  রাউন্ডআপ স্প্রে গ্লাইফোসেইট দিয়ে তৈরি পণ্য, যা উদ্ভিদনাশক হিসেবে ব্যবহৃত হয়। উক্ত রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করবেন বলেও জানান তিনি।

Johnson was at Monsanto Cancer Trial
ফাইল ছবি: মনসান্তো ট্রায়াল চলাকালীন মামলার বাদী ডোয়ানে জনসন, সান-ফ্রান্সিসকো, ক্যালিফোর্নিয়া; জুলাই ৯, ২০১৮। Photographer: Josh Edelson, Source: Reuters

মামলার বাদী জনসনের পক্ষে এটা খুবই দূরূহ ব্যাপার ছিল যে, তার ক্যান্সারের জন্য রাউন্ডআপ (Roundup) স্প্রে-ই দায়ী, অপরদিকে অস্বীকার করাও কিছুটা দূরূহ ছিল মনসান্তোর পক্ষে। মামলার প্রকৃতি অনুসারেই মনসান্তোকে কিছুই প্রমাণ করতে হয়নি; প্রমাণের দায় [Burden of Prove] জনসনের উপরেই ছিল। কিন্তু তার মানে এও ছিল না, জনসনের ক্যান্সারের জন্য একমাত্র কারণ হিসেবে রাউন্ডআপ-কে প্রমাণ করা। বরং রাউন্ডআপ পণ্যটি ক্যান্সারের জন্য অন্য কোনোভাবেই কারণ [substantial contributing factor] হতে পারে কিনা, সেটাই ছিল আইনী বিবেচ্য।

অপরদিকে, আমেরিকান ক্যান্সার সোসাইটির মতে, অধিকাংশ লিম্পোমা ক্যান্সার হচ্ছে ইডিওপ্যাথিক; যার মানে হচ্ছে ক্যান্সারের কারণ অজানা। এবং মনসান্তো বারবার দাবী করে আসছিল, ক্যান্সারের কারণ হিসেবে টোবাকো চিহ্নিত কারণ হলেও, তাদের পণ্য রাউন্ডআপ চিহ্নিত কারণ না।

জনসন মনসান্তো কোম্পানীর বিপক্ষে মামলা করেন ২০১৬ সালে। কিন্তু সে সময় সে অসুস্থ থাকায় ট্রায়াল স্থগিত থাকে। পরবর্তীকালে ৮ সপ্তাহের ট্রায়াল শেষে এই মামলার রায় আসে। এদিকে, জনসনের চিকিৎসাকারী ডাক্তার জানান, জনসনের সর্বোচ্চ ২০২০ সাল পর্যন্ত বাঁচার সম্ভাবনা আছে।

x
যেকোনো ধরনের আইনী সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে এডভোকেটের সাথে পরামর্শ করুন।

সূত্র: CNN, BBC News, Aljajeera, ABS7 News, Reuters

জ/জি/স/আ-আ