মোহাম্মদ জসিম’র গুচ্ছ কবিতা— ‘তাসবউ’

যাপনচিত্র

আসল মানুষটাকে বেচে দিয়ে
প্রতিবিম্ব হাতে নিয়ে ফিরে আসে জীবিতরা!

যখন খনির ভিতরে মিলছে প্রাচীন কঙ্কাল
বৃক্ষেরা খুলে বসলো ফলের দোকান
রাজা তার চেয়ার থেকে কাত হয়ে পড়ে গেলেন!

যখন কঙ্কালরা ফেরত চাইলো পুরনো পয়সা
পোষাক নিজেই পছন্দ করলো উপযুক্ত মানুষ
চাকরি নিজেই ছেড়ে চলে গেল বৃদ্ধ কেরানীকে

তখন— নিজের নামের চেয়ে হালকা মনে হলো
নিজের বিরুদ্ধে হাঁটা প্রতিবিম্বটিকে…


তাসবউ

একটা জোকার
তার— অন্ধকার!

তাসগুলো বিস্ময়— পরদাদার আমল থেকে
উড়ছে—
সূর্যাস্তে বিশ্বাস করে না তারা কেউ!

একটা তাস— বউ বউ গান
একটা তাস— বিলাপ বাগান!

কোমরে রূপোর তাগা— নাচে গায় তাসবৌঠান!


বিষাদবণিক

বেদনাবণিকেরা শিকারী মাছরাঙার
ঢঙ—
আইবুড়ো বৃক্ষের দুঃখিত ফুলের কেশর!

শ্মশানের দিক থেকে উড়ে আসে বালাইনাশক
রোদ…
স্নেহ;— ছায়াচ্ছন্ন গুল্মের খোঁপায় পুড়ছে দুঃখের
তুষ!

জলের শব্দে যদি ঘুম ভাঙে— বিলুপ্ত চার দিক
পরগাছা প্রতিধ্বণি কুড়িয়ে বাঁচে বিষাদবণিক!