গেইলের সামনে ছোট লক্ষ্য

টপঅর্ডার ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায় ১৩৫ রানে থেমে গেল রাজশাহী কিংস। টসে হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নামে রাজশাহী। 

১০০ রানের আগেই গুটিয়ে যেতে বসা রাজশাহী জাকির হাসান ৪২ রানের উপর ভর করে শতরান পার করে।জাকির হাসান ৩৬ বলে ২ চার ও ১ ছক্কায় ৪২ রানের সংগ্রামী ইনিংস।

মুমিনুল ফিরলে স্থায়ী হতে পারেননি সৌম্যও। তার ঘাড়েও চেপে বসে অশুভ ভূত। অযাচিতভাবে মাশরাফিকে ওভার বাউন্ডারি হাঁকাতে গিয়ে ফরহাদ রেজাকে তিনি ক্যাচ দিয়ে এলে চাপে পড়ে রাজশাহী। পরে জাকির হাসানকে নিয়ে তা কাটিয়ে ওঠার চেষ্টা করেন মোহাম্মদ হাফিজ। দারুণ খেলছিলেন তারা। দুজনের মধ্যে ভালো মেলবন্ধনও গড়ে উঠেছিল। ফলে চাপ কাটিয়ে উঠছিল উত্তরবঙ্গের দলটি। তবে হঠাই খেই হারান হাফিজ। ২৯ বলে ১ চারে ব্যক্তিগত ২৬ করে রানআউটে কাটা পড়েন তিনি।

এ পরিস্থিতিতে রেজার শিকারে পরিণত হন লরি ইভান্স। আর রায়ান টেন ডেসকাট রানআউট হলে ফের চাপে পড়ে রাজশাহী। এর মধ্যে রেজার বলির পাঁঠা হন ইসুরু উদানা। সেই জের না কাটতেই শফিউল ইসলামের বলে ক্লিন বোল্ড হন আরাফাত সানি।

একে একে সবাই যাওয়া-আসার মধ্যে সবাই যোগ দিলেও একপ্রান্ত আগলে থেকে যান জাকির। তার ৩৬ বলে ২ চার ও ১ ছক্কায় ৪২ রানের লড়াকু ইনিংসে শেষ পর্যন্ত ৮ উইকেটে ১৩৫ রান তুলতে সামর্থ্য হয় রাজশাহী। রংপুরের হয়ে মাশরাফি ও ফরহাদ নেন ২টি করে উইকেট।

এবারের বিপিএলে এখন পর্যন্ত ৪ ম্যাচে ২ জয় ও সমান পরাজয়ে পয়েন্ট টেবিলের দ্বিতীয় স্থানে রংপুর। আর ৩ ম্যাচে ১ জয় ও ২ হারে ষষ্ঠ স্থানে রাজশাহী।