পুলিশের কাছ থেকে অপরাধীকে ছিনিয়ে নিল সহযোগীরা

সোমবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে নগরীর শালবাগান এলাকায় রাজশাহী পাসপোর্ট অফিসের দালাল ছানাকে (২৫) পুলিশের কাছ থেকে ছিনিয়ে নিয়ে গেছে তার সহযোগীরা। যদিও প্রকাশ্যে এ ঘটনার সত্যতা নেই বলে দাবি করছে পুলিশ। এর আগে ২০১৫ সালের ৩ মার্চ পাসপোর্ট অফিসে দালালির সময় গ্রেফতার হয়েছিলেন ছানা।

বিষয়টি অস্বীকার করে চন্দ্রিমা থানা পুলিশের ওসি হুমায়ুন কবির বলেন, ‘এ ধরনের কোনো ঘটনা ঘটেনি। ঘটনাস্থল থেকে ভুক্তভোগী দুইজনকে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। ভুক্তভোগীরা দালাল ছানার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে চাইলে তাদের সহযোগিতা করা হবে।’

সূত্র মতে, ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পুলিশ সদস্যরা দালাল ছানাকে আটক করে। এ সময় স্থানীয় ছানার কয়েকজন সহযোগী এসে চন্দিমা থানা পুলিশের এসআই সেলিমের কাছে থেকে জোর করে ছানাকে ছিনিয়ে নেয়। পরে ভুক্তভোগী দুইজনকে পুলিশ থানায় নিয়ে যায়।

এ ঘটনায় দুই ভুক্তভোগীকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে নগরীর চন্দ্রিমা থানা পুলিশ। ভুক্তভোগী মিজানুর রহমান জানান, তিনি জেলার তানোর উপজেলা সদরের বাসিন্দা। কয়েকদিন থেকে পাসপোর্ট অফিসে ঘুরছেন পাসপোর্ট করার জন্য। রোববার পাসপোর্ট অফিসের দালাল ছানা ৭০০ টাকায় পাসপোর্ট করে দিতে চান। এ সময় তিনি ছানাকে টাকা দেন। কিন্তু পরে পাসপোর্টের কাজ তিনি নিজেই শেষ করেন।

তিনি আরও জানান, সোমবার দুপুরে দালাল ছানার কাছে টাকা চাইলে ছানাসহ কয়েকজন দালাল তাকে ও তার ছোট ভাই লিমনকে মারধর করে। এ সময় ২০০ টাকা রেখে ৫০০ টাকা ফেরত দেয়ার প্রস্তাব করলে তাদের আরও মারধর করা হয়।