যমুনা টেলিভিশন সাংবাদিকদের একটি ঘরে আটকে রেখে, তারপর?

বগুড়ার মাদকাসক্ত নিরাময় কেন্দ্রের পরিচালক ও তার লোকজন যমুনা টেলিভিশনের সাংবাদিকদের পিটিয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে শহরে কলোনী স্টাফ কোয়ার্টার এলাকায় রিয়েল লাইফ মাদকাসক্ত নিরাময় কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে।

এ অভিযোগে পুলিশ তিন ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে।এ ব্যাপারে যমুনা টিভির স্টাফ রিপোর্টার এসএম জিয়া সদর থানায় ৩ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত ৮-১০ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। আহত সাংবাদিকরা যমুনা ইনভেস্টিগেশন অনুষ্ঠান ৩৬০ ডিগ্রি টিমের সদস্য।

বগুড়া সদর থানা পুলিশ তিন জনকে আটক করেছে।  গ্রেফতারকৃতরা হলেন বগুড়া শহরে দক্ষিণ ঠনঠনিয়ার মৃত বদিউজ্জামানের ছেলে রিয়াল লাইফ মাদকাসক্ত নিরাময় কেন্দ্রের পরিচালক নুর মোহাম্মদ (৩৮), প্রতিষ্ঠানের কর্মচারী শহরে নাটাইপাড়ার মৃত রামচন্দ্র দাসের ছেলে পলাশ কুমার দাস (৩৩) ও অপর কর্মচারী শহরে লতিফপুর কলোনীর আশরাফ আলীর ছেলে আরকু (২৮)।

যমুনা টিভির ইনভেস্টিগেশন ৩৬০ ডিগ্রি টিমের স্টাফ রিপোর্টার এসএম জিয়া জানান, তারা দেশের বিভিন্ন স্থানে মাদক নিরাময় কেন্দ্র নিয়ে অনুসন্ধানী রিপোর্ট করছিলেন। এর ধারাবাহিকতায় টিম নিয়ে বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টার দিকে বগুড়া শহরের কলোনী এলাকায় রিয়াল লাইফ মাদকাসক্ত নিরাময় কেন্দ্রে আসেন। ওই প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা-কর্মচারী পরিচয় পাওয়ার পর তাদের ভেতরে ঢুকতে দেন।

তিনি বলেন, কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিয়ে নিরাময় কেন্দ্রের অনিয়মের ছবি ভিডিও করার সময় হঠাৎ তারা ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন। এক পর্যায়ে পরিচালক নুর মোহাম্মদের নেতৃত্বে ৮-১০ দুর্বৃত্ত তাদের ওপর চড়াও হয়। মারপিট করতে করতে তাদের একটি ঘরে আটকে রাখা হয়। খবর পেয়ে সদর থানা পুলিশ তাদের উদ্ধার করে।

সদর থানার ওসি এমএম বদিউজ্জামান জানান, সাংবাদিকদের মারপিট করায় তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অন্য আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।