জাতীয় সংলাপের সিদ্ধান্ত ঐক্যফ্রন্টের, থাকছে না জামায়াত

আগামী ৬ ফেব্রুয়ারি জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট সিদ্ধান্ত নিয়েছে জাতীয় সংলাপের। এই সংলাপে গত নির্বাচনে অংশ নেওয়া রাজনৈতিক দলগুলো থাকলেও, জামায়াতে ইসলামী থাকবে না।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ঐক্যফ্রন্টের স্টিয়ারিং কমিটির বৈঠক শেষে এমনটাই জানালেন জেএসডির সভাপতি ও ঐক্যফ্রন্ট শীর্ষ নেতা আ স ম আব্দুর রব। ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক ড. কামাল হোসেনের মতিঝিলের চেম্বারে বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হয়।

ঐক্যফ্রন্টের স্টিয়ারিং কমিটির এই বৈঠকে বিএনপির কোনো নেতা উপস্থিত ছিলেন না।  এ বিষয়ে রব বলেন, ‘ঐক্যফ্রন্টের মধ্যে কোনো বিভেদ নেই। বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর অসুস্থ। তাই আসতে পারেননি। এটা নিয়ে নেগেটিভ কিছু ভাবার নেই।’

ঐক্যফ্রন্টের এই শীর্ষ নেতা বলেন, ‘গত ৩০ ডিসেম্বর দেশে যে নির্বাচন হয়েছে তাতে সাধারণ জনগণের অংশগ্রহণ ছিল না। প্রহসনের এই নির্বাচন বাতিলের দাবিতে ঐক্যফ্রন্ট আন্দোলন চালিয়ে যাবে। আন্দোলনে সাধারণ মানুষের অংশগ্রহণের অংশ হিসেবে গণস্বাক্ষর সংগ্রহ, অবস্থান কর্মসূচির কথা চিন্তা করা হচ্ছে।’

এ সময় প্রধানমন্ত্রীর নির্বাচন পরবর্তী সংলাপের বিষয়ে ঐক্যফ্রন্টের প্রধান সমন্বয়ক মন্টু বলেন, ‘কোন প্রধানমন্ত্রীর ডাকা সংলাপের কথা বলছেন? গত ৩০ ডিসেম্বরতো কোনো নির্বাচনই হয়নি। আমরা প্রহসনের সেই নির্বাচন প্রত্যাখ্যান করেছি।’

বৃহস্পতিবার বিকেল পৌনে ৫টায় শুরু হওয়া স্টিয়ারিং কমিটির বৈঠকে ড. কামাল হোসেন ছাড়াও জেএসডির সভাপতি আ স ম আবদুর রব, নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, সুলতান মোহাম্মাদ মুনসুর, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, গণফোরামের কার্যকরী সভাপতি সুব্রত চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মোহসীন মন্টু, নাগরিক ঐক্যের কেন্দ্রীয় নেতা শহীদুল্লাহ কায়সারসহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন।