রাজধানীর বাসা থেকে নাট্যব্যক্তিত্ব তানভীরের মৃতদেহ উদ্ধার

চলচ্চিত্র পরিচালক ও অভিনেতা তানভীর হাসান ওসমানীর (সুমন) (৪২) মৃতদেহ উদ্ধার করেছে উত্তরা পূর্ব থানা-পুলিশ। রাজধানীর উত্তরার একটি বাসা থেকে তার মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়।

তানভীর

আজ শুক্রবার (১৮ জানুয়ারি) দুপুরের দিকে উত্তরা ৪ নম্বর সেক্টরের ৪ নম্বর রোডের ৩৫ নম্বর ৩ তলা বাসার ২য় তলা থেকে তার মৃতদেহটি উদ্ধার করা হয়। পরে বিকেলে ময়নাতদন্তের জন্য ঢামেক হাসপাতালের মর্গে পাঠায় পুলিশ।

এ নিয়ে তানভীর হাসানের ভগ্নিপতি ইশতিয়াক আহমেদ গণমাধ্যমকে জানান, তানভীর স্ত্রী কোহিনূর নাহার আখন্দ ও এক ছেলে প্রখরকে (৬) নিয়ে উত্তরার ওই বাসায় ভাড়া থাকতেন। তানভীর অনেক দিন থেকেই মানসিকভাবে অসুস্থ ছিলেন। গত ৪/৫ বছর আগে থেকেই কাজ ছেড়ে দেন তিনি।
দেড় মাস আগে ব্রেইন স্ট্রোক করেন। তার পর থেকেই মানসিক ভাবে ভেঙে পড়েন।

তিনি আরো জানান, তানভীর ঢাকা লিটল থিয়েটারের সদস্য ছিলেন। পরে তিনি নাট্যকেন্দ্রে যোগ দেন। নাটকে অভিনয়ের পাশাপাশি তিনি পরিচালনাও করেছেন। বিজ্ঞাপনচিত্র নির্মাতাও ছিলেন। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে নাটক ও নাট্যতত্ত্ব বিভাগ থেকে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর করেছেন।
তানভীর লক্ষ্মীপুর জেলার চন্দ্রগঞ্জ বাজার উপজেলার পশ্চিম লতিফপুর আনোয়ার উল্লাহ এর ছেলে।

উত্তরা পূর্ব থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. আবদুল রহিম জানান, দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে খবর পেয়ে ওই বাসা থেকে তানভীর হাসানের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়।
এসআই আরো জানান, বৃহস্পতিবার রাতে খাবার খেয়ে সাড়ে ১২টা নাগাদ ঘুমাতে যান। রুমের দরজা ভেতর থেকে বন্ধ ছিল। সকাল সাড়ে ১০টার দিকে কাজের মেয়ে রুম পরিষ্কার করার জন্য রুমের ভেতরে ঢুকলে ফ্যানের সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পান তানভীরকে।

আত্মীয়স্বজনদের সঙ্গে কথা বলে প্রাথমিকভাবে মনে হচ্ছে, মানসিকভাবে বিকারগ্রস্ত হয়েই গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন তিনি। তবুও বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। শনিবার ময়নাতদন্তের পর মৃত্যুর কারণ নিশ্চিত হওয়া যাবে।