ডাকসুর অতীত ইতিহাস, ১১ মার্চ নতুন নির্বাচন

দীর্ঘদিন পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) ও হল সংসদ নির্বাচন ১১ মার্চ (সোমবার) অনুষ্ঠিত হবে। ওই দিন সকাল ৮টা থেকে বেলা ২টা পর্যন্ত ভোটগ্রহণ চলবে।হল প্রাধ্যক্ষ এবং ডাকসু নির্বাচন সংক্রান্ত উপদেষ্টা পরিষদের সভা শেষে উপাচার্য আখতারুজ্জামান এই তারিখ নির্ধারণ করেন।

বুধবার সন্ধ্যায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় জনসংযোগ দফতরের এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

[su_heading size=”20″ margin=”30″]

  • ১৯২১ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার তিন বছরের মাথায় ১৯২৪ সালে ডাকসুর প্রথম কার্যক্রম শুরু।
  • বাংলাদেশের স্বাধীনতাপ্রাপ্তির পূর্ব পর্যন্ত প্রায় নিয়মিতই ডাকসুর নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে।
  • সর্বশেষ ডাকসু নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ১৯৯০ সালে।
  • ২৮ বছর ধরে এ সংস্কৃতি বহমান।
  • ১৯৯৪ সালে ছাত্রলীগ নির্বাচনের পরিবেশ না থাকার অভিযোগ আনার কারণে নির্বাচন স্থগিত হয়।
  • ১৯৯৫ সালে তফসিল ঘোষণা হলেও নির্বাচন হয়নি।
  • ১৯৯৮-এর ২৭ সেপ্টেম্বর নির্বাচনের তারিখ নির্দিষ্ট করে দেয়ার পরও ছাত্রদলের বাধায় শেষ পর্যন্ত নির্বাচন আর হয়নি।
  • ২০০৫-এর ডিসেম্বরে ডাকসু নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা করলেও ছাত্রলীগের বিরোধিতায় তা আর সম্ভব হয়নি।

[/su_heading]

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সকাল ৮টা থেকে বেলা ২টা পর্যন্ত নির্বাচনের ভোটগ্রহণ চলবে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) ও হল সংসদ নির্বাচনের গঠনতন্ত্রের ৮(ই) ধারা অনুযায়ী ডাকসু’র সভাপতি হিসেবে উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান নির্বাচনের এই তারিখ ও সময় নির্ধারণ করেন।

এর আগে বিকেল সাড়ে ৩টায় এবং বিকেল সাড়ে ৪টায় উপাচার্য অফিস সংলগ্ন লাউঞ্জে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামানের সভাপতিত্বে কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) ও হল সংসদ নির্বাচন বিষয়ে হল প্রাধ্যক্ষ এবং ডাকসু নির্বাচন-সংক্রান্ত উপদেষ্টা পরিষদের সাথে পৃথক পৃথক সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভা শেষে উপাচার্য ডাকসু নির্বাচনের এই তারিখ নির্ধারণ করেন।

এর আগে ২০১২ সালে ডাকসু নির্বাচন অনুষ্ঠানে পদক্ষেপ নিতে নির্দেশনা চেয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের তৎকালীন ২৫ জন শিক্ষার্থীর করা রিটের চূড়ান্ত শুনানি শেষে এ বছরের ১৭ই জানুয়ারি হাইকোর্ট রায় দেয়, যেখানে ছয় মাসের মধ্যে ডাকসু নির্বাচন অনুষ্ঠানে ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেওয়া হয়।