স্বাধীনতার ৪৮ বছর পরও এই কুয়ার গায়ে ‘পাকিস্তান জিন্দাবাদ’ লেখা ছিলো

দেশ স্বাধীন হয়েছে ৪৮ বছর হলো। আর এত বছর পর এসে কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলার একটি শত বছরের “কুয়া”র গা থেকে ‘পাকিস্তান জিন্দাবাদ’ লেখা মুছে দিয়ে “জয় বাংলা” লেখা হলো।

পাকিস্তান জিন্দাবাদ লেখা কুয়া
ছবি – পাকিস্তান জিন্দাবাদ লেখা মুছে ফেলার আগে।

গেল বছর বিষয়টি নিয়ে বিভিন্ন গণমাাধ্যমে প্রকাশিত হবার পর প্রশাসনের নজরে আসলে কুয়াটি সংস্কারের কার্যক্রম শুরু করে উপজেলা প্রশাসন। কুয়ার গা থেকে ইতোমধ্যে পাকিস্তান জিন্দাবাদ মুছে ফেলায় মুক্তিযোদ্ধা সংগঠনসহ সাধারণ মানুষের মাঝে স্বস্তি বিরাজ করছে।

জানা যায়, উপজেলার বিলুপ্ত ছিটমহল দাশিয়ারছড়ার প্রবেশ পথে একটি শত বছরের ব্যক্তি মালিকানার স্থাপিত কুয়া রয়েছে। ওই কুয়ার মালিক ছিলেন ভোলা মামুদ। পাকা করা কুয়ার গায়ে পাকিস্থানের জাতীয় পতাকার চাঁদতারা প্রতিকসহ লেখা ছিল পাকিস্থান জিন্দাবাদ। ১৩১৩ চৈত্র মাস। মেরামত ১৩৫৭। গ্রামবাসী ও ইউনিয়ন বোর্ড। সৈয়দ উদ্দিন সরকার, পিইউবি।

এটি ১১২ বছর আগে তৈরি করা হয়। এই কুয়াকে ঘিরে ইন্দ্রার পাড় নামে পরিচিত উপজেলার কাশিপুর ইউনিয়নের আজোয়াটারি গ্রাম।

স্থানীয় বাসিন্দা আব্দুর রব (৬৫), শফিকুল ইসলাম (৫০), ছকিনা বেগমসহ (৫৫) আরও অনেকে জানান, এই এলাকায় বৃটিশ আমলে পানির সংকট ছিল। আর সেই সংকট দূর করার জন্য মৃত ভোলা মামুদ নিজ উদ্যোগে আধা শতক জায়গায় একটি কুয়াটি তৈরি করেন। সেই থেকে এখনো এই কুয়ার পানি শুকিয়ে যায়নি। এই কুয়ার পানি দিয়ে এখানকার মানুষ খাবার, গোসলসহ সাংসারিক কাজে ব্যবহার করছে।

ছবি - পাকিস্তান জিন্দাবাদ লেখা মুছে ফেলার পরে।
ছবি – পাকিস্তান জিন্দাবাদ লেখা মুছে ফেলার পরে।

তারা আরও জানান, বাংলাদেশ স্বাধীনতার ৪৮ বছর পরে সংস্কারের মাধ্যমে কুয়ার গাঁয়ে পাকিস্থান জিন্দাবাদ কথাটি মুছে ফেলায় এলাকায় স্বস্তি ফিরে এসেছে। তাই উপজেলা প্রশাসনসহ সরকারকে ধন্যবাদ জানান।

এ ব্যাপারে কাশিপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গোলজার হোসেন জানান, শত বছরের এই কুয়াটি মেরামতের জন্য গত অর্থ বছরে বরাদ্দ আসে। ইউনিয়ন পরিষদের এল,জি,এস,পি প্রকল্প-৩ থেকে বরাদ্দ পাওয়া দেড় লাখ টাকা ব্যয়ে এটি সংস্কার কাজ শুরু হয়েছে এই মাসেই।

গত ১৫ দিন ধরে কুয়াটি সংস্কারের কাজ চলছে। কয়েক দিনের মাথায় সংস্কার কাজ শেষ হবে। এরই মধ্যেই পাকিস্তান জিন্দাবাদ শব্দটি মুছে ফেলা হয়েছে। কাজ শেষে জয় বাংলা শ্লোগান সম্বলিত ফলক স্থাপন করা হবে ।

উপজেলার সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মজিবর রহমান বলেন, বঙ্গবন্ধুর ডাকে সাড়া দিয়ে জীবন বাজি রেখে দেশ স্বাধীন করেছি। সেই দেশের মাটিতেই যদি পাকিস্থান জিন্দাবাদ শব্দটি থাকে এটা খুবই দুঃখজনক। তারপরেও স্বাধীনতার ৪৮ বছর পর কুয়ার গায়ে থেকে পাকিস্থান জিন্দাবাদ শব্দটি মুছে ফেলায় উপজেলার সকল মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে স্বস্তি ফিরেছে।

এত বছর পর পাকিস্থান জিন্দাবাদটি মুছে ফেলে জয় বাংলা নাম করণ করার জন্য ইউনিয়ন পরিষদসহ উপজেলা প্রশাসনকে ধন্যবাদ জানান তিনি।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাছুমা আরেফিন জানান, কুয়ার সংস্কারের কাজ চলছে। এদেশে পাকিস্তান জিন্দাবাদ লেখাটি থাকবে না। কুয়ার গায়ে পাকিস্তান জিন্দাবাদ লেখাটি মুছে ফেলা হয়েছে। সংস্কারের কাজ শেষ হলে আনুষ্ঠানিকভাবে “জয় বাংলা” শ্লোগান ফলক লাগানো হবে।