র‍্যাম্পে হাঁটলেন সোনাগাছির অবহেলিত বারবনিতারা

আমাদের সমাজে পতিতাদের অন্য নজরে দেখা হয়। এড়িয়ে যাওয়া হয় তাদের। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই সাধারণ মানুষের সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত হতে হয়।

ভারতের ‘সোনাগাছি’র এই সব অবহেলিত মেয়েরা ডিজাইনার সুজয় দাশগুপ্তের সৌজন্যেই সোনাগাছি থেকে র‍্যাম্পে উঠে এলেন এবং পরিচিত হল হাজার হাজার মানুষের সামনে, যা তাদের কষ্টময় জীবনে একটু আনন্দের ছোঁয়া এনে দেয়।

ছবি: সংগৃহীত

সম্প্রতি অনুষ্ঠিত হয় দেরাদুন ফ্যাশন উইক। দেরাদুন ফ্যাশন উইকে শো-ডিরেক্টর ছিলেন অজেন্দ্র গৌতম, স্টাইলিংয়ের দায়িত্বে ছিলেন অতুল আনসাল, জাভেদ আনজুম।

সেখানে বাংলার হয়ে প্রতিনিধিত্ব করেছিলেন ডিজাইনার সুজয় দাশুগুপ্ত। নিজের ‘বারবনিতা’ কালেকশন তুলে ধরেন কলকাতার ডিজাইনার সুজয় দাশগুপ্ত। তার প্রজেক্টের অন্যতম কেন্দ্রই ছিল রেড লাইট এরিয়ার সেই নারীরাই।

ছবি: সংগৃহীত

কেউ সেজেছেন সুতিতে, কেউ খাদি, কেউ বা মসলিন ও চান্দেরিতে। মেকআপ এবং ড্রেসিংয়ের পর এককথায় তাদের লাগছিল অনবদ্য।

 

চিরাচরিতভাবে শাড়ি না পড়ে এখানে শাড়িকে অন্যভাবে শোকেস করা হয়েছিল যা সত্যিই আধুনিক এবং দৃষ্টিনন্দন লাগছিল। শুধুমাত্র শাড়িতেই আটকে ছিলেন না মডেলরা, সুজয়ের কালেকশনের স্পেশাল ধুতি-কুর্তাতেও দেখা যায় মডেলদের।

ডিজাইনার সুজয়। ছবি: সংগৃহীত

এই প্রজেক্টের কাজ শুরুর আগে ডিজাইনার সুজয় দাশগুপ্ত সোনাগাছির মেয়েদের জীবনযাত্রা নিয়ে পড়াশোনা করেছিলেন। এই ফ্যাশন শো-তে ক্যামেরা লেন্সের পিছনে দায়িত্বে ছিলেন সোনু ভাট।

আর যে মেয়েদের বাড়ির উঠোনের মাটিতে মূর্ত হয়ে ওঠেন দেবী দুর্গা, সেই বাড়ির মেয়েরাও এবার দেবী হয়ে উঠল।