অভিনন্দনের শরীরে ক্ষত ও আড়ি পাতার যন্ত্র : কী বলছেন চিকিৎসকেরা

সেনা হাসপাতালে আগামী ১০ দিন অভিনন্দনের বিভিন্ন ধরনের চিকিৎসা ও পরীক্ষা হবে। শুক্রবার পাকিস্তান থেকে দেশে ফিরেছেন উইং কমান্ডার অভিনন্দন বর্তমান। তার পর থেকেই তিনি রয়েছেন দিল্লির সেনা হাসপাতালে। সেখানে তাঁর বিভিন্ন ধরনের শারীরিক পরীক্ষা করা হচ্ছে।

সরকারি সূত্রে সংবাদসংস্থার খবর, অভিনন্দনের দেহের এমআরআই স্ক্যান করা হয়েছে। সেখানে দেখা যাচ্ছে অভিনন্দনের মেরুদণ্ডের নীচের অংশে চোট রয়েছে। পাশাপাশি তাঁর পাঁজরে আঘাতের চিহ্ন মিলেছে। তবে তাঁর শরীরে কোনও ‘বাগ’-এর সন্ধান পাওয়া যায়নি। এই ধরনের ‘বাগ’ বা আড়ি পাতার যন্ত্র পাকিস্তান সেনা অভিনন্দনের দেহে ঢুকিয়ে দিতে পারে বলে আশঙ্কা করছিলেন চিকিত্সকরা।

পাক ফাইটার জেটের গুলিতে অভিনন্দনের মিগ ২১ বাইসনে আগুন লেগে যায়। তখনই তিনি আপাতকালীন ‘ইজেক্ট’ করে বাইরে বেরিয়ে আসেন। এই ধরেনর ইজেক্ট-এর ফলে মেরুদণ্ডে আঘাত লাগতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।

অন্যদিকে, ইজেক্ট করার পর পাক মাটিতে নেমে পড়েন অভিনন্দন। সেখানে তাঁকে ঘিরে ধরে জনতা। শুরু হয় মারধর। এখনও অভিনন্দনের ডান চোখের নীচে তার দাগ রয়েছে। ওই মারধরের ফলেই পাঁজরে আঘাত হয়েছে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

সেনা হাসপাতালে আগামী ১০ দিন তাঁর বিভিন্ন ধরনের চিকিত্সা ও পরীক্ষা হবে বলে সূত্রের খবর। পাক হেফাজতে থাকাকালীন অভিনন্দনের ওপরে টানা ৬০ ঘণ্টা মানসিক নির্যাতন করা হয়েছে বলে জানা যায়। এতে তাঁর ওপর প্রবল চাপ তৈরি করতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। পাশাপাশি পাকিস্তানি সেনা তাঁকে কী ধরনের জেরা করেছে তাও অনুপুঙ্খভাবে জানার চেষ্টা করবেন ভারতের সশস্ত্র বাহিনীর গোয়েন্দারা। ফলে আগামী কয়েকদিন তাঁকে হাসপাতালেই থাকতে হচ্ছে।