নোবেল শান্তি পুরস্কারের সম্ভাব্য তালিকায় আছেন ইমরান খান

আমেরিকার একটি প্রথম সারির সংবাদপত্র পাক-ভারত চলমান যুদ্ধপরিস্থিতিতে পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত ও পদক্ষেপের জন্য নোবেল শান্তি পুরস্কারের প্রারম্ভিক লিস্টে তার নাম রেখেছে।

নোবেল শান্তি পুরস্কারের জন্য যোগ্য প্রার্থীদের সঙ্গে দ্য ক্রিশ্চিয়ান সায়েন্স মনিটর নামের প্রতিষ্ঠানের সম্পাদকীয় বোর্ড ইমরান খানকেও তালিকাভূক্ত করেছে।

অন্যান্যদের নামের মধ্যে ইমরান খানের নামটাই সবচেয়ে বিস্ময়জন বলে জানান কর্তৃপক্ষ। প্রতিবেদন অনুযায়ী, ১৪ ফেব্রুয়ারি ভারত অধ্যুষিত কাশ্মীরের পুলওয়ামা হামলায় ৪৪ জন ভারতীয় সেনা নিহত হবার ঘটনায় ভারত পাকিস্তানে ১৯৭১ সালের পর প্রথমবারের মতো বিমান হামলা চালায়। এর ফলে দু’দেশের সীমান্তে যুদ্ধের আবহ তৈরি হয়।

যদিও ইমরান খান ভারতীয় পাইলট অভিনন্দনকে ফিরিয়ে দেয়ার মাধ্যমে যুদ্ধের সম্ভাবনা বাতিল করেন। এর পাশাপাশি তিনি শান্তির উদ্দেশ্যে ভারতের সাথে কথা বলতে আগ্রহ দেখান এবং পাকিস্তানে থেকে জঙ্গিরা যাতে অন্য কোন দেশে হামলা করতে না পারে তার জন্য যথোপযুক্ত পদক্ষেপ নেন।

ইমরান খানকে তালিকাভূক্ত করার কারণ হিসেবে তারা জানিয়েছে, ‘শান্তি প্রতিষ্ঠায় তিনি যে কাজটি করেছেন; তা বিবেদপূর্ণ বর্তমান বিশ্বের শান্তিপ্রিয় নেতৃত্বের একটি ব্যতিক্রমী দৃষ্টান্ত।’

‘যুদ্ধ কেউ জেতে না। বিশেষ ক’রে ভারত পাকিস্তানের মতো রাষ্ট্র যাদের অস্ত্রভাণ্ডার এতোটাই সমৃদ্ধ, তাদের যুদ্ধের কথা ভাবাও উচিত নয়।’

কর্তৃপক্ষের মতে ইমরান খানই প্রথম এমন প্রধানমন্ত্রী যে কিনা কোন প্রকার রাজনৈতিক অতীত নেই।

যদিও অক্টোবর মাসের আগে নোবেল শান্তি পুরস্কার প্রসঙ্গে কিছুই জানা যাবে না বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ।