গুপ্তচরবৃত্তির দায়ে মিয়ানমারে রয়টার্সের দুই সাংবাদিকের ৭ বছর কারাদণ্ড

রয়টার্সের ২ সাংবাদিককে ৭ বছর কারাদণ্ড দিলো মিয়ানমার

মিয়ানমারের আদালত বার্তা সংস্থা রয়টার্সের দুই সাংবাদিককে ৭ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে। রাষ্ট্রীয় গোপন নথি সংগ্রহের অভিযোগে  তাদের এই শাস্তি দেওয়া হয়। 

রাখাইন রাজ্যে সেনাবাহিনীর খুন, ধর্ষণ, নির্যাতনের মুখে বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের নিয়ে তথ্য সংগ্রহ করতে গিয়ে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর হাতে আটক হন ওয়া লোন (৩২) ও কিয়াও সোয়ে (২৮) নামে এই দুই সাংবাদিক।

তবে সাংবাদিকরা তাদের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তারা বলেন- আমরা গণমাধ্যমের নীতিমালা মেনেই দায়িত্ব পালন করছি। অভিযোগ অস্বীকারের পাশাপাশি তারা আদালতকে বলেন, ইয়াঙ্গুনের একটি রেস্তোরাঁয় তারা বসে থাকলে দুই পুলিশ কর্মকর্তা তাদের হাতে কিছু কাগজ ধরিয়ে দেন। এরপরই অন্য কর্মকর্তারা তাদের আটক করেন। সাজানো বিষয়টি তখন ভিডিওতে ধারণ করেন আরেক পুলিশ কর্মকর্তা।

ইয়াঙ্গুনের দক্ষিণ জেলা জজ ইয়ে লইন তাঁর রায়ের বলেন, ‘ওয়া লোন (৩২) ও কিয়াও সো ও (২৮) তথ্য সংগ্রহের সময় উপনিবেশিককালের রাষ্ট্রীয় গোপনীয়তার আইনের তিনের একের সি ধারা ভঙ্গ করেছেন। এ জন্য তাঁদের সাত বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হলো। গত ১২ ডিসেম্বর থেকে তাঁদের কারাবাস, এই সময় তাঁদের সাজা থেকে বাদ যাবে।

উল্লেখ্য, গত বছরের ২৫ আগস্ট নির্যাতনের মুখে রাখাইন রাজ্যে থেকে প্রায় সাত লাখ রোহিঙ্গা বাস্তুচ্যুত হয়ে বাংলাদেশে পালিয়ে আসে। একে জাতিসংঘ ‘জাতিগত নিধন’ বলে আখ্যায়িত করেছে। রোহিঙ্গা বাস্তুচ্যুত হয়ে বাংলাদেশে পালিয়ে আসার এক বছর পূর্ণ হলেও তাদের ফিরিয়ে নিতে মিয়ানমার সরকার এখনো কার্যকর কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করেনি।

সুত্রঃ আল জাজিরা