অজ্ঞাত নারীর কারণে প্রাণে বেঁচে গেলেন তামিম-মিরাজরা

সেন্ট্রাল ক্রাইস্টচার্চের ডিনস ইভে মসজিদ আল নুরে অজ্ঞাত বন্দুকধারীর হামলায় অন্তত ৬ জন নিহত হলেও অল্পের জন্য বেঁচে গেছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সদস্যরা।

জুমার ওয়াক্ত হওয়ায় সে মসজিদেই নামাজ পড়তে যাচ্ছিলেন তামিম ইকবাল, মেহেদি হাসান মিরাজ, তাইজুল ইসলামরা। মসজিদে ঢোকার ঠিক আগমুহূর্তে অজ্ঞাত এক নারী এসে তামিমদের সতর্ক করে জানান যে মসজিদের ভেতরে গোলাগুলি হচ্ছে, এখন ভেতরে যাওয়া ঠিক হবে না।

সে মহিলার সতর্কবার্তা শুনে তড়িঘড়ি করে টিম বাসের মধ্যে ঢুকে যায় বাংলাদেশ দলের খেলোয়াড়রা এবং শুয়ে পড়ে মেঝেতে। কিছুক্ষণ পরে তামিম-মিরাজরা বাস থেকে বেরিয়ে হাগলি পার্ক দিয়ে চলে গিয়েছে ক্রাইস্টচার্চের হাগলি ওভাল স্টেডিয়ামের ড্রেসিংরুমে।

তবে দলের কোচিং স্টাফ এবং দুই তরুণ সদস্য লিটন কুমার দাস ও নাঈম হাসান রয়েছেন টিম হোটেলেই। তাদেরকে সেখানেই থাকতে বলে দিয়েছেন দলের টিম ম্যানেজার খালেদ মাসুদ পাইলট।

ধারণা করা হচ্ছে হামলায় অন্তত ২০-৩০ জন স্থানীয় নাগরিক আহত হয়েছেন। এখনো পর্যন্ত ৬ জনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছে স্থানীয় সংবাদমাধ্যমগুলো। তারা জানাচ্ছে নিহতের সংখ্যা বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে প্রবল।