ঝরে চোখ হিজল ফুলের পাশে : মোস্তফা হামেদী

রূপখাল

সকাল ফেটে বেরিয়ে পড়ছে রোদ
মাছেদের কুলকুচার ধ্বনি
আড়ষ্টতা ভেঙে জেগে ওঠা গাছেরা
আর দ্রুতগামী কিছু লোক
আলপথ বেয়ে পেরিয়ে যাচ্ছে ভোর

পাতিল মাজার শব্দ
ফুটে ওঠা ভাতের ধোঁয়া
রসুইঘরজুড়ে কাঁকন বাজছে

উঠান লেপে যাচ্ছে রোদ
মেহগনি গাছের ফাঁকে
শিরিষ ও সাজনা বাগান
ভরে আছে
সে স্ফূর্তিতে

যেন পাতাল থেকে বেরিয়ে এলো
নিটোল কোনো মুখ
পিটপিট করে তাকাচ্ছে
আর জাদুময় থলে থেকে
উগরে দিচ্ছে
মিঠা হাওয়া
গাছপাকা কলার কাঁদি
লালশাক, ধনেপাতার ঝুড়ি
বরইয়ের ডাল
সেচের পানিতে সয়লাব ভূঁই

রূপখাল থেকে উজিয়ে উঠা রং
প্রীতি ও ফুলসহ
অনন্তর মাখিয়ে চলেছে
বনানী ও স্রোতধারা সংশ্রবে
তিরতির বয়ে চলা দিন



পরিত্যক্তা

ঝরে চোখ হিজল ফুলের পাশে
পুকুরের পাড় ধরে আসবুজ বন
পুরনো দিনের গানে হিরন্ময়
কোনো এক পাড়ায়
আঁচলে গহনা বেঁধে পথে নেমে যায়

ঘাটের উপর শুকায় সাবানদানি
পা ফাটা তুলতে চাওয়া
ঝামা ইটের গুড়া
শীর্ণ দড়ির ওপর ঝোলে
ক্ষয়ে যাওয়া রঙের
জবাফুলশোভিত শেমিজ

পাখিপোষার খাঁচার শিক ধরে
যেন কার আর্তস্বর পেরিয়ে যায় বন
শ্যাওলাঘন উঠানে মিয়ানো আলো
উঁইঢিবি ঢেকে দেয়
পায়ের কারুকাজ,
সংসারের চূর্ণ চূর্ণ আভা

লেপা ঘর-এক এক করে জমিয়ে তোলা
তৈজসপত্র, যৎসামান্য আসবাবে
হাত বুলায়–
কাঠের আলমারিটা
জোড়া কাঁচের জগ
পাঁচটা ফুলঅলা বাসন
রুইতুলার বালিশ
অসম্পূর্ণ ফুলের কুশন

পড়ে আছে মাতৃহারা শিশুর মতো

ভোরের আগেই সে নেমে পড়লো
সালিশের রায় মেনে
দূর কোনো গ্রামের গহনে
ভাইয়ের বোঝা হয়ে

পথ তাকে নেবে?
না কি কোনো অর্জুনের বন
সাজিয়েছে ডাল!


জড়োয়া

খণ্ড খণ্ড মেঘ
উপচে পড়ছে
গদির টিনের চালে
পানির হল্লা
মাছের বাজার থেকে
গন্ধ বেরোয়
একশো একটা লোক
নিজেকে পেরিয়ে
দাঁড়িয়ে পড়লো হাটে
মুখের ওপর
হরেক রকম আশা
ঘনিয়ে উঠছে
মেঘের ওপারে নাকি
তারার সীমানা
ব্যবসা গুটিয়ে যারা
হাওয়া হয়ে গেল
কোনও কিছুই নেই
এমন চেহারা
অসুখ বিসুখ অলা
লোকেরা বেরোলো
খণ্ড খণ্ড মেঘ
তাড়িয়ে বেড়ায়
গাঙের পানিতে ছায়া
পথের প্রান্তে
সজনে গাছটি একা
আরও কত কী
অনামা গুল্মসারি
মাড়িয়ে ছুটছে
মানুষ বেরিয়ে পড়ে
বাজার ছাড়িয়ে
অনেক দূরের বাড়ি
ঘাসের জড়োয়া
রূপক সংকেতে ভরা
সেসব রাস্তা
টাটকা টাটকা সব
সবজি বাগান
ঘোমটা দেওয়া নারী
আর্দ্র পড়শি
তাবিজ ঝোলানো শিশু
তাকিয়ে থাকছে
রঙের কৌটা খুলে
সটকে পড়লো
একটা প্রবীণ লোক
খেলতে খেলতে
বিকাল অবধি পৌঁছে
কোথায় হারালো
শনের জলায় ঠেকে
ঘাসের নৌকা
বিরহ ওপারে থুয়ে
দারুণ ফুল্ল।


ফিচার্ড ইমেজ: ইফতেখার ইফতি