সালেহ আহমেদের বিদায়ে ছিল না শোবিজের পরিচিত মুখ

বুধবার দুপুর আড়াইটার দিকে ৮৪ বছর বয়সে মারা যান নন্দিত অভিনেতা সালেহ আহমেদ। এরপর প্রায় সাড়ে পাঁচ ঘন্টা অতিবাহিত হলেও তার মরদেহ দেখতে এদিন রাত আটটা পর্যন্ত দেখা যায়নি শোবিজ অঙ্গনের কোনো পরিচিত মুখ। ২০১১ সালে ব্রেন স্ট্রোকের পর তিনি ধীরে ধীরে অভিনয় থেকে দূরে সরে যান।

রাজধানীর অ্যাপোলো হাসপাতাল থেকে বিকেল চারটার পর এই অভিনেতার মরদেহ তার উত্তরখান এলাকার বাসায় নেয়া হয়।

সালেহ আহমেদের মামাতো ভাই অভিনেতা আহসানুল হক মিনু বলেন, মৃত্যুর সংবাদ পেয়েও সালেহ আহমেদকে হাসপাতালে কোনো শিল্পী দেখতে আসেননি। তবে জাহিদ হাসান, আহসান হাবিব নাসিম, আনিসুর রহমান মিলন, মীর সাব্বির, দিলারা জামান ফোন করে খোঁজ নিয়েছেন।

তিনি বলেন, সময় স্বল্পতার কারণে হয়তো শিল্পীরা তাকে দেখতে আসেননি। শুটিংয়ে ব্যস্ত আছেন অনেকে। কারো আসা বা না আসা নিয়ে আমাদের অভিযোগ নেই, তবে যে মানুষটা অভিনয়ে নিবেদিত প্রাণ ছিলেন অন্তত একবার হলেও তার মরদেহ দেখতে আসা উচিত ছিল।

প্রবীণ অভিনেতা কেএস ফিরোজ বলেন, ‘অয়োময়’ নাটকে কাজের সময় ময়মনসিংহে শুটিংয়ের সময় সালেহ আহমেদের সাথে প্রথম পরিচয় হয়েছিল। তিনি দিলখোলা মজার মানুষ ছিলেন।

সালেহ আহমেদের কন্যা সৈয়দা সুলতানা লিনা বলেন, তিনি যতদিন চেতন অবস্থায় ছিলেন অভিনয়ে ফিরতে চেয়েছিলেন। মাঝেমধ্যে বিভিন্ন শুটিং স্পটে যেতে চাইতেন। বলতেন, অনেকের সাথে দেখা হবে।

তিনি আরও বলেন, তার মৃত্যুতে শিল্পীরা দেখা করতে না আসলেই বা কি আসে যায়। তার তুলনা তিনি নিজেই। তবে আশা করেছিলেন তার সহকর্মীরা একবার হলেও তার মরদেহ দেখতে আসবেন।