ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করতে তুলসীর ভূমিকা অনন্য

তুলসীর গুণের কথা বলতে গেলে শেষ হয় না। সর্দি, কাশি, গলা ব্যথা, ত্বকের নানা রোগ, হাজারো সমস্যার ঘরোয়া প্রতিকার হল তুলসী। দীর্ঘকাল ধরে ঠাণ্ডা লাগার ঘরোয়া প্রতিকার হিসেবে ঘরে তুলসী মধু আদা ইত্যাদি ব্যবহার করা হয়, শ্বাস-প্রশ্বাসের রোগ দূর করতেও তুলসীর ভূমিকা অনন্য। শুধু এই সমস্ত রোগই নয়, ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করতেও তুলসীর ভূমিকা অনন্য। রক্তে শর্করার স্তর স্থিতিশীল করার জন্য তুলসী পাতার ভূমিকা অসীম।

ডায়াবেটিসের রোগীদের জন্য তুলসীর পাতা কোলেস্টোরেলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে। এটি শরীরের খারাপ কোলেস্টোরেলের মাত্রা কমাতে সাহায্য করে এবং ভালো কোলেস্টোরেলের মাত্রা বৃদ্ধি করে। সম্প্রতি একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে তুলসী টাইপ -২ ডায়াবেটিস কমাতে সাহায্য করে।

রক্তে চিনির স্তর পরিচালনা করার জন্য কীভাবে কাজ করে তুলসী?

তুলসী রক্ত শর্করার মাত্রা ঠিক করে

– তুলসী পাতা খেলে রক্তের শর্করার স্তর ঠিক থাকে, যার কারণে ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কম হয়।

– তুলসীর পাতায় স্ট্রেস কমানোর হরমোন কোর্টিসোল পাওয়া যায়।

– তুলসীর পাতা চাপ কমাতে সাহায্য করে। মাথা ব্যথার সমস্যায় কষ্ট পেলে রোজ তুলসী খাওয়া উচিত। গরম জলে তুলসীর পাতা ফুটিয়ে নিন এবং তারপর ছেঁকে নিয়ে ওই জল খেলে মাথা ব্যাথা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

জেনে নিন তুলসীর পাতা কোন কোন রোগ দূর করতে পারে

১. মাথা ব্যাথা কমায় 

আদা ও তুলসী মিশিয়ে ব্যবহার করলে মাথা ব্যাথা কমে যেতে পারে। তুলসী পাতা এবং আদার রস যোগ করে মাথায় লাগান। এই রস মাথা ব্যাথা হলে খেতেও পারেন।

২. লিভারের শক্তি বাড়ায় তুলসী

লিভারের কার্য ক্ষমতা বৃদ্ধি এবং রক্তে কোলেস্টরেল কমিয়ে দেওয়ার জন্য তুলসীর ব্যবহার লাভজনক। তুলসীর পাতা নিঃশ্বাসের দুর্গন্ধ এবং গলা খুসখুসের সমস্যাও কমায়।

৩. জ্বর কমাতে সাহায্য করে

জ্বর বা ফ্লুয়ের সময় তুলসী পাতা খেলে এই সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। তুলসীর ব্যবহারে পেটের নানা সমস্যারও সমাধান হয়।

৪. তুলসীর বিবিধ উপকারিতা

তুলসির পাতা পেটের ক্ষত, বমি, গ্যাস, পেট খারাপের মতো সমস্যা থেকেও মুক্তি দিতে পারে।