সৌদি ও আরব আমিরাতের আগ্রাসনে দুর্ভিক্ষ এড়াতে পারবে না ইয়েমেন

পণ্যের দাম বেড়েছে ৩০ শতাংশ। প্রতিদিন বাড়ছে অভুক্তের সংখ্যা। Photograph: Yahya Arhab/EPA

[su_dropcap size=”5″]যে[/su_dropcap]কোন সময়ে ইয়েমেনে হানা দিতে পারে দুর্ভিক্ষ যা বহু মানুষের মৃত্যুর কারণ হয়ে উঠতে পারে। এর সম্ভাবনা ক্রমান্বয়ে বৃদ্ধি পাচ্ছে কারণ একদিকে যেমন পণ্যের মূল্য বৃদ্ধি পাচ্ছে তেমন অপরদিকে বাড়ছে বন্দরগুলোতে যুদ্ধের প্রচণ্ডতা। জাতিসংঘের মানবিক সহায়তা বিভাগের প্রধান, মার্ক লোকক, এ’ব্যাপারে সতর্কতা অবলম্বন করতে বলেছেন।[su_pullquote]লোকক আরো বলেন, দুর্ভিক্ষ এখানে প্রায় নিশ্চিত। এটা থামানোর পক্ষে হয়তো অনেক দেরী হয়ে গেছে। অর্থনৈতিক অবস্থা ভেঙে পড়ার দরুণ প্রধান পণ্যসমূহের দাম প্রায় ৩০ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। ফলে ইতিমধ্যেই লক্ষ লক্ষ ইয়েমেন পরিবার নিজেদের নূন্যতম প্রয়োজন মেটাতে পারছে না।[/su_pullquote]

 

এছাড়া হোদেইদা পোর্টে সংঘর্ষের কারণে এর গ্রেইন মিলস বন্ধ ক’রে দেওয়ার পাশাপাশি রাজধানীর সাথে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন ক’রে দিয়েছে। হোদেইদা বন্দরের এই সাংঘার্ষিক অবস্থা কায়েম করে আরব আমিরাতের সেনাবাহিনী। তাদের সাহায্য করে সৌদি এয়ারফোর্স। তারা হাইতি বিপ্লবীদের সাথে সংঘর্ষে যুক্ত আছে যারা ২০১৪ সাল থেকে হোদাইদা বন্দর দখল ক’রে আক্সহে৷ আরব আমিরাত জুলাই মাসের শুরুতে আক্রমণ স্থগিত রাখে শান্তি চুক্তির জন্য কিন্তু তা না হওয়ায় সেপ্টেম্বরের ৭ তারিখ থেকে পুনরায় যুদ্ধ শুরু হয়।

লোকক বলেন, অনুদান সৌদি আরব ও আরব আমিরাতের সামরিক আগ্রাসনকে নিন্দার ঊর্ধ্বে নিতে পারবে না। Photograph: Denis Balibous/Reuters

সাম্প্রতিক সামরিক আক্রমণের পূর্বে হোদেইদার জনসংখ্যা ছিল প্রায় ৬ লক্ষ। কিন্তু লোকক বলেন, এই বোমা হামলার পর সেখানে এখন কতজন আছে সেটা বলা মুশকিল। জাতিসংঘ সাম্প্রতিক সেখানে ৪২০০০ পরিবারের জন্য খাদ্যের ব্যবস্থা করেছে। লোককের মতে, যারা সেখানকার জনসংখ্যার মাত্র একচতুর্থাংশ।   

সৌদি আরব এই বোমা হামলার কারণে সর্বত্রই সমালোচনার স্বীকার হয়েছে। লোকক উল্লেখ করেন, [su_quote]সৌদি স্বীকার করেছে যে ৯ আগস্ট শিশুদের বাসে বোমা হামলা  করা হয়, তা ছিল অপরিকল্পিত এবং যারা এর সাথে যুক্ত তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণেরও আশ্বাস দেয়।[/su_quote]

এছাড়া সৌদি ও আরব আমিরাত ইয়েমেনের রিলিফের প্রায় অর্ধেক বহন করে। যদি এই অনুদান তাদের সামরিক আগ্রাসনকে সমালোচনার ঊর্ধ্বে নিতে পারে না।  

সূত্র: দ্য গার্ডিয়ান