এই হিংসার পৃথিবীতে রমজান মাসে কতটা নিরাপদ মুসলমানরা!

এবাদতের মাস রমজান। কিন্তু বিগত বছরগুলোত্র পবিত্র এই মাসটি মুসলমান ও অন্যান্য ধর্মাবলম্বীর জন্য আতঙ্কের সময়ে রূপ নিয়েছে। কারণ যে মসজিদ কেবল শান্তি ও নামাজ আদায়ের, সেটি এখন উগ্র শ্বেতাঙ্গ শ্রেষ্ঠত্ববাদী এবং মুসলমানবিদ্বেষীদের হামলার লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত হয়েছে।

সম্প্রতি নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চের দুটি মসজিদে জুমার সময় মুসল্লিদের ওপর এক অস্ট্রেলীয় সন্ত্রাসীর এলোপাতাড়ি গুলিতে ৫১ জন নিহত হয়েছেন। ২০১৭ সালের রমজানে লন্ডনের একটি মসজিদে হামলার ঘটনা ঘটেছে। এক বয়স্ক মুসল্লি সেদিন নিহত হন। ওই একই বছর কানাডায় একটি মসজিদে গুলি করে ছয় মুসল্লিকে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়। ২০১৪ সালের রমজানে জঙ্গিগোষ্ঠী আইএস তাদের ফ্যাসিবাদী ইসলামী রাষ্ট্র ঘোষণা করে। এ সময় ইরাক ও সিরিয়ায় লোকজনকে শিরশ্ছেদে হত্যা করে তারা এবং নারীদের ধর্ষণ করে।

আরও পড়ুন: রাশিয়ার কাছ থেকে এসইউ-৫৭ যুদ্ধবিমান কিনছে তুরস্ক, শঙ্কিত যুক্তরাষ্ট্রের বিরোধিতা

ক্রাইস্টচার্চের সেই হামলার সপ্তাহখানের মধ্যে ব্রিটেনে মুসলমানদের প্রতি বিদ্বেষপ্রসূত অপরাধ ৫৯৩ শতাংশ বেড়ে যায়। লন্ডনে মুসলমানদের প্রতি অকথ্য ভাষার গালাগাল দেওয়াহচ্ছ্র। বিভিন্ন সময় মুসলমানদের ‘তোমাকে গুলি করে হত্যা করা উচিত,’ ‘এ ধরনের শাস্তিই তোমাদের প্রাপ্য,’ ‘মুসলমানদের অবশ্যই মরতে হবে,’ বলে গালি দেয়া হচ্ছে।

বিশ্বের ২০০ কোটি মুসলমান আর মাত্র একদিন পরেই আল্লাহর সঙ্গে নিজেদের সম্পর্ক পুনঃস্থাপনে রোজা রাখা শুরু করবেন, যখন চারপাশে ঘৃণা আর হিংসার ছায়া দীর্ঘ থেকে দীর্ঘতর হচ্ছে।

এই রমজানেই নবী করিম (সা.) এর ওপর কোরআন নাজিল হয়। কোরআন বারবার আল্লাহ ও তার সৃষ্টি মানুষের প্রতি হক আদায় করতে বলা হয়েছে মুমিনদের। এবাদত করতে বলা হয়েছে। এটিই রমজানের শক্তি।

আরও পড়ুন: তিন দশক পর পুনর্নির্মিত হল বসনিয়ার ঐতিহাসিক যুদ্ধবিধ্বস্ত আলাদজা মসজিদ

কাজেই এখানে কোনো আতঙ্ক থাকবে না, কেউ কাউকে হত্যা করবে না। অথচ এ সময়ে আল্লাহর শত্রুরা, আধুনিক মানবিকতার ঘৃণাবাদীরা এবাদতকারীদের হামলার লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত করেন।

মুসলমানরা চলতি বছর এক ধরনের শঙ্কা নিয়েই মসজিদে যাবেন। জিন্তু ইসলাম ও মুসলমানদের ওপর হামলা আমাদের সবার ওপরই হামলার মতো। পশ্চিমা দেশগুলোতে রমজান যদি পবিত্রতা ও নিরাপত্তা হারিয়ে ফেলে, তা হলে সভ্যতা আর অবশিষ্ট রইল কই?

ভাষ্যকার ও গবেষক এড হুসেইনের লেখাটি মার্কিন গণমাধ্যম সিএনএন থেকে অনূদিত (সংক্ষিপ্ত ও পরিবর্ধিত)।