ক্যান্সার কোষ ধ্বংস করতে গোলমরিচের জুড়ি নেই

রান্নার স্বাদ বাড়াতে যেমন দক্ষিণ এশিয়া, ইউরোপ এবং মধ্যপ্রাচ্যে ব্যাপক জনপ্রিয় গোলমরিচ, তেমনি এই মসলাটি আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য অনেক উপকারী। এই ছোট মসলাটি আমাদের শরীরে প্রবেশ করার পর আমাদের শরীরে অনেক পরিবর্তন শুরু করে দেয়। আসুন এর উপকারিতা সম্পর্কে জেনে নেই –

হতাশা কমায়

মানসিক চাপ যেন আমাদের নিত্যসঙ্গী। ফলে আমাদের শরীর ও মন খারাপ থাকে এবং কাজে মন বসে না। আর এই ডিপ্রেশন কমাতে গোলমরিচ কিন্তু অনেক উপকারী। কারণ গোল মরিচে আছে পিপেরাইন নামক একটি উপাদান, যা আমাদের মস্তিষ্কে ‘ফিল গুড’ হরমোনের ক্ষরণ বাড়িয়ে দেয়। ফলে নিমেষে মন খারাপ দূর হয়ে যায়, সেইসাথে ডিপ্রেশন কমে এবং মস্তিষ্কের কর্মক্ষমতা বৃদ্ধি পায়।

পেপটিক আলসার কমায়

অতিরিক্ত ভাজাপোড়া খাওয়ার ফলে আমাদের আনসার এর মত রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেড়ে যায়। একাধিক গবেষণায় দেখা গেছে গোলমরিচের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং অ্যান্টি-ইফ্লেমেটরি প্রপাটিস যা আমাদের শরীরে প্রবেশ করে গ্যাস্ট্রিক মিউকোজাল ড্যামেজকে প্রতিরোধ করে। একই সাথে পেপটিক আলসার এর মত রোগকে দূরে রাখতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে।

ত্বকের সৌন্দর্য বৃদ্ধি

ত্বকের সৌন্দর্যে গোলমরিচ কিন্তু বেশ কাজের। এর ব্যবহারের ফলে ত্বকের ওপর বয়সের ছাপ পড়ে না, একইসাথে বলিরেখা অদৃশ্য হতে শুরু করে। ত্বকের উপরের অংশে জমে থাকা মৃত কোষের আবরণ সরিয়ে দেয় ফলে, ত্বকের ঔজ্জ্বল্য জন্য চোখে পড়ার মতো বৃদ্ধি পায়। এজন্য অল্প পরিমাণ গোলমরিচের সাথে পরিমাণ মতো মধু, দই মিশিয়ে প্রতিদিন খেতে হবে। এই তিনটি উপাদানের বানিয়ে মুখে লাগালে উপকার পাওয়া যায়।

ফুসফুসের কার্যক্ষমতা বাড়ায়

শ্বাসকষ্ট রোগের জন্য গোলমরিচ অনেক উপকারী। এর পাশাপাশি সাইনোসাইটিস এবং নেজাল কনজেশানের মত রোগের ওষুধ হিসেবে এই প্রাকৃতিক উপাদানের কোন জুড়ি নেই। শুধু তাই নয় রেসপিরেটরি ইনফেকশন এর জন্য গোলমরিচ অসাধারণ কাজ করে তাই বায়ু দূষণের মাঝে প্রভাব থেকে ফুসফুস ভালো রাখতে নিয়মিত গোলমরিচ খেতে ভুলবেন না যেন।

ইনফেকশন কমায়

গোল মরিচে আছে এন্টিব্যাক্টেরিয়াল প্রপাটিস যা আমাদের ইনফেকশন জনিত রোগের প্রকোপ কমাতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। সেই সাথে পোকামাকড় কামড়ানোর পর ইনফেকশন, চুলকানি বা এ ধরনের সমস্যা কমাতে এই প্রাকৃতিক উপাদানটি দারুন কাজ করে।

ক্যান্সার কোষ ধ্বংস করে

গোলমরিচের রয়েছে পিপেরিন নামে একটি উপাদান। যা আমাদের শরীরে বেড়ে ওঠা ক্যান্সার কোষকে শুরুতেই ধ্বংস করে দেয়। একাধিক গবেষণায় দেখা গেছে এই মসলাটিতে আছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি, ভিটামিন এ, ফ্ল্যাভোনয়েড ক্যারোটিন এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। যা আমাদের শরীরে জমে থাকা ক্ষতিকর উপাদান বের করে দেয়। এর ফলে ক্যান্সার রোগ যেমন দূরে থাকে তেমনি দেহের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতার উন্নতি ঘটে।

হজমের সমস্যা দূর করে গোলমরিচ

গোলমরিচে থাকা পিপেরাইন শুধু ক্যান্সার কোষকে ধ্বংসই করে তা নয় সেই সাথে হজম সহায়ক এসিডের ক্ষরণ যাতে ঠিকমত হয় সেদিকেও খেয়াল রাখে আর এই এসিড গুলি কাজ করা শুরু করে দিলেই হজমের সমস্যা দূর হয়। একসাথে গ্যাস বা অসস্তির সমস্যা কমতে শুরু করে।