কোনটা বেশি সত্য : প্রাচীন উন্নত সভ্যতা নাকি এলিয়েন?

কল্পবিজ্ঞানের বুদ্ধিমান বহির্জাগতিক প্রাণী প্রাচীনকালে পৃথিবী ভ্রমণ করেছে এবং প্রাচীন মানুষের সাথে যোগাযোগ হয়েছে, এই ধারণা থেকেই “প্রাচীন মহাকাশচারী হাইপোথিসিস” বা মতবাদের সৃষ্টি । আধুনিক সংস্কৃতি, প্রযুক্তি, ধর্মীয় বিশ্বাস সবকিছু  প্রাচীনকালে বহির্জাগতিক প্রাণীর সাথে যোগাযোগের ফসল। বেশীরভাগ ধর্মীয় দেবদেবী এই বহির্জাগতিক প্রাণীর ধারণা থেকে নেয়া বলে মনে করা হয় । প্রাচীন মহাকাশচারী ধারণাটি যদিও বেশীরভাগ স্কলার গুরুত্বের সাথে দেখেননি । ব্রিটিশ লেখক ও সাংবাদিক গ্রাহাম হ্যানকক উন্নত প্রাচীন মানব সভ্যতার অস্তিত্ব প্রমাণের সাথে প্রাচীন মহাকাশচারী তত্ত্বকে বাতিল করেছেন। তিনি ঐতিহাসিক এবং প্রাগৈতিহাসিক বিভিন্ন উপাদানসমূহ হারিয়ে যাওয়া সভ্যতার প্রমাণের দিক নির্দেশ করে বলে মনে করেন। প্রাচীন এলিয়েনের ক্ষেত্রে —তাঁর দৃষ্টিতে — এই রহস্যময় উন্নত সভ্যতার ট্রেস হিসাবে আরও ভালভাবে ব্যাখ্যা করা হয়েছে।

Egyptian Civilization
শিল্পীর তুলিতে প্রাচীন মিশরীয় সভ্যতার শিকার চিত্র। আর্টিস্ট : Corbis Image Source : https://www.magnoliabox.com

গ্রাহাম হ্যানকক প্রাচীন সভ্যতা, পাথরের স্থাপনা, প্রাচীন মিথ, জ্যোতিষ শাস্ত্র, জ্যোতিষ বিজ্ঞানের প্রাচীন তথ্য এর উপর দুই যুগের উপর কাজ করছেন। তিনি নিজেকে মনে করেন একজন অপ্রচলিত চিন্তাবিদ যিনি মানব ইতিহাস নিয়ে বিতর্কিত প্রশ্ন তুলে ধরেছেন। তিনি বিশ্বাস করেন একটি অবিছিন্ন সংস্কৃতি থেকে সকল প্রাচীন সভ্যতা এসেছে ।

[su_quote]গ্রাহাম হ্যানকক প্রাচীন সভ্যতা, পাথরের স্থাপনা, প্রাচীন মিথ, জ্যোতিষ শাস্ত্র, জ্যোতিষ বিজ্ঞানের প্রাচীন তথ্য এর উপর দুই যুগের উপর কাজ করছেন। তিনি নিজেকে মনে করেন একজন অপ্রচলিত চিন্তাবিদ যিনি মানব ইতিহাস নিয়ে বিতর্কিত প্রশ্ন তুলে ধরেছেন। তিনি বিশ্বাস করেন একটি অবিছিন্ন সংস্কৃতি থেকে সকল প্রাচীন সভ্যতা এসেছে ।  [/su_quote]

১২,০০০ বৎসর পূর্বে এক উল্কার আঘাতে ধ্বংস হয়  অনেক উন্নত এক সভ্যতা। গ্রাহাম হ্যানকক বিশ্বাস করেন বেবিলন, মেসোপটেমিয়া, মিশরীয় সভ্যতা আমাদের কল্পনার চেয়েও বেশি উন্নত সভ্যতা। এগুলোর যে কোন একটি সভ্যতা এভাবেই বিলীন হয়েছে বলে তিনি মনে করেন, যার কিছু হাল্কা চিহ্ন ছাড়া কিছুই অবশিষ্ট নেই। হ্যানকক সাবধান করে দেন এমনই কোন প্রাকৃতিক কারনেই বর্তমান সভ্যতাও বিলীন হয়ে যাবে। গ্রাহাম হ্যানকক তাঁর “ম্যাজিসিয়ানস অব দ্যা গডস”  বইয়ে এই বিশ্বাসের কথা বলেছেন।

Magicians of the Gods : Graham Hancock
এই বইটি গ্রাহাম হ্যানকক এর উল্লেখযোগ্য একটা কাজ ধরা হয়। এই বইটির মূল ভাষ্য হলো, ‘পৃথিবীর খুবই প্রাচীন উন্নত সভ্যতাসমূহের বিলোপ।’ ছবিসূত্র : https://www.washingtontimes.com

যারা মানব সভ্যতার বিকল্প ইতিহাস নিয়ে কাজ করেন, তাদের ন্যূনতম এতখানি সঠিক তথ্য প্রমাণাদি থাকা দরকার—যাতে মূলধারার ইতিহাসবিদদের গ্রহণযোগ্যতা থাকবে। যদি কখনও ইতিহাস পুনরায় লেখার দরকার পরে তখন যেন এর গুরুত্ব থাকে। এটা মাথায় রেখে হ্যানকক “প্রাচীন মহাকাশ হাইপোথিসিসের” আলোকে বলতে চান প্রাচীন শব্দ এবং সংস্কারের  বিস্ময়কর এবং  মৌলিক কাঠামোগত অর্থ পাওয়া যাবে যদি তা  আধুনিক স্পেইস গবেষণার প্রযুক্তির আলোকে পর্যালোচনা করা যায়।হ্যানকক বলেন, [su_quote]মহাবিশ্বে সর্বত্র প্রাণের অস্তিত্ব আছে এই ধারণার সাথে তাঁর কোন বিরোধ নেই। এখনও অনেক কিছু অজানা তাই চটজলদি কোন অতি আশ্চর্য সম্ভাবনা উড়িয়ে দেয়া ঠিক হবে না।[/su_quote]

বিভিন্ন জটিল প্রাচীন প্রত্নতাত্ত্বিক সাইট নিয়ে কাজ করে এবং পৃথিবীর বিভিন্ন প্রাচীন লিপি ও ঐতিহ্য বিশ্লেষণ করে হ্যানকক এমন কোন গ্রহণযোগ্য তথ্য-প্রমাণ পাননি যা “প্রাচীন মহাকাশচারী হাইপোথিসিস” কে সমর্থন করে । তিনি বলেন, [su_quote]প্রাচীন মহাকাশ হাইপোথিসিসের বিভিন্ন সাইট এবং লেখায় বিশ্বাসযোগ্যতা আনার জন্য প্রাচীনলিপি সমূহের পারস্পারিক অবস্থা অনুযায়ী বারবার বিশ্লেষণ করা প্রয়োজন যেন পাঠক একটি পরিষ্কার ও গ্রহণযোগ্য ধারণা পায়।[/su_quote]

Inca Civilization
পেরুতে গড়ে ওঠা প্রাচীন ইনকা সভ্যতার নিদের্শন। ছবিসূত্র : http://www.ourcolombiamission.com

জেখারিয়া সিচিন, প্রাচীন মহাকাশচারী ধারণার উপর কাজ করেছেন। তিনি মানবের উৎস প্রাচীন মহাকাশচারী বলে বিশ্বাস করেন। গ্রাহাম হ্যানকক সিচিনের এই ধারণার সাথে দ্বিমত পোষণ করেন। তিনি মনে করেন সিচিন তাঁর লেখায় প্রচুর কল্পনার আশ্রয় নিয়েছেন। সিচিন পৃথিবীর যে ক্রনিকল সিরিজ তৈরি করেছেন তাতে কল্প বিজ্ঞান সাহিত্যের প্রভাব রয়েছে। তিনি নতুন যুগের “ধর্ম” এর মতো কিছু উত্থাপন করেছেন যার মধ্যে মানুষের একটি গ্রহের অস্তিত্বের “বিশ্বাস” রয়েছে, এটি নিবিরু এবং এর উন্নত, উচ্চ-প্রযুক্তি বাসিন্দাদের —আমাদের সৃষ্টিকর্তা বা নেফিলিম বা আনুনাকি হিসাবে পরিচিত।

গ্রাহাম হ্যানকক মনে করেন ঐতিহাসিক এবং প্রাগৈতিহাসিক সকল প্রাণ “প্রাচীন মহাকাশচারী হাইপোথিসিসের” চেয়ে “প্রাচীন উন্নত মানব সভ্যতা” দ্বারা অনেক ভাল এবং দক্ষতার সাথে ব্যাখ্যা করা সম্ভব। “ফিঙ্গার প্রিন্টস অব দ্যা গডস”, “ম্যাজিসিয়ানস অব দ্যা গডস”, “সুপার ন্যাচারাল”, “দ্যা ম্যাসেজ অব দ্যা স্ফিংস” ইত্যাদি বইয়ে হ্যানকক প্রাচীন উন্নত মানব সভ্যতার অস্তিত্ব প্রমাণ করেছেন এবং প্রাচীন এলিয়েনের ধারণাকে বাতিল করেছেন।

ফিচারড ছবিসূত্র : https://www.npr.org [এই ছবি প্রাচীন রোমানদের খাবার পদ্ধতি বর্ণনা করে। ছবিটি মূলত মোজাইক প্রোর্টেট এর, নেওয়া হয়েছে El Alia, Tunisia থেকে।]