মাকে শেষবারের মতো ছুঁতেও পারল না তুবা (৪)

বুধবার দুপুরে ছোট্ট শিশু তাসলিমা তুবা (৪) মায়ের স্পর্শ না নিয়েই রায়পুর উপজেলার সোনাপুর গ্রামের বাড়ি থেকে ঢাকায় ফিরে গেছে আত্মীয় স্বজনদের সঙ্গে। 

গত শনিবার রাজধানীর উত্তর বাড্ডায় ছেলে`ধরা সন্দেহে গণপি`টুনিতে হ`ত্যাকারীরা হ`ত্যা করে তুবার মা তাসলিমা বেগম রেনুকে (৪০)।

আরও পড়ুন: মা চকলেট আনতে গেছে : গণপি`টুনিতে নি`হত রেনুর ছোট্ট মেয়ে তুবা

বুধবার মাকে দা`ফনের পর থেকে মায়ের অপেক্ষায় কেঁদে কেঁদে বুক ভাসাচ্ছে তুবা ও তার ভাই। তাদের চোখ সারাক্ষণ খুঁজছে শুধু মাকে। মায়ের দীর্ঘ অনুপস্থিতিতে থেমে থেমে চলছে তার কান্না। কেউ জিজ্ঞাসা করলেই বলছে, ‘মা চকলেট আনতে নিচে গেছে।

রেনুর এই নি`হত হবার ঘটনাটি ইতিমধ্যে বেশ আলোড়ন তুলেছে দেশে-বিদেশে। অনেকে তুবা ও তার ভাইয়ের দায়িত্ব নিতে চাইছে। যদিও স্বজনরা তা দিতে রাজি নয়। তাদের দাবি, নিজেরা না হয় তার বাবাই তাদের মানুষ করবেন মায়ের শেষ ইচ্ছেমতো।

আরও পড়ুন: ছেলেধ`রা সন্দেহে রেনু হ`ত্যা মামলার প্রধান আসামি হৃদয় গ্রেফতার

নিহত রেনুর বড় বোন নাজমুন নাহার বলেন, ‘বুধবার সকালে নি`হত রেনুর রেখে যাওয়া ১০ বছরের এক ছেলে ও চার বছরের এক মেয়েকে নিয়ে ঢাকা চলে যাচ্ছি। ছেলে ও মেয়ে এখন থেকে আমার কাছেই থাকবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘গুজব আমাদের সব শেষ করে দিয়েছে। গুজব ছড়িয়ে একজন নারীকে এভাবে প্রকাশ্যে হ`ত্যা করা হয়েছে! এটি মেনে নেওয়া যায় না। আমি এ হ`ত্যাকাণ্ডের সুষ্ঠু তদন্ত ও দোষীদের গ্রে`ফতার করতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করছি। যেন আর কোনও মানুষ এভাবে গুজবের বলি না হয়।’