নিজের গ্রুপ না করায় ১২ কর্মীকে কো`পালেন ছাত্রলীগ নেতা

শুক্রবার ১২ জনের বেশি কর্মীকে কুপিয়ে গুরুতর আ`হত করার অভিযোগে চট্টগ্রামের সাতকানিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও হ`ত্যা মামলার আসামি আমিনুল ইসলামকে কা`রাগারে পাঠানো হয়েছে।

সাতকানিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি শফিউল আলম সোহেল করেন, নিজের গ্রুপ না করায় আমিন একের পর এক কর্মীদের ওপর হা`মলার ঘটনা ঘটাচ্ছে। এছাড়া ২০১৪ সালের ৩১ আগস্ট ভৈরবে আমিন ও তার সাঙ্গপাঙ্গরা ট্রেন থেকে ফেলে ত্বকিরকে হ`ত্যা করে।

আরও পড়ুন: বিশ্বে বর্তমান স`ন্ত্রাসবাদের শুরু ইসরাইল প্রতিষ্ঠার মধ্য দিয়ে: মাহাথির মোহাম্মাদ

তিনি আরও বলেন, আমার কমিটির যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আমিন গত কয়েকদিনে অন্তত ১২ নেতা-কর্মীকে কু`পিয়েছেন এবং মা`রধর করেছেন। 

সর্বশেষ শুক্রবার রাতে সাতকানিয়া থানার কেরানীহাট এলাকার একটি হাসপাতালের সামনে উপজেলা ছাত্রলীগের কর্মী মোহাম্মদ পারভেজকে ধা`রালো অ`স্ত্র দিয়ে কু`পিয়ে আ`হত করেন। আশপাশের লোকজন পারভেজকে উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন। 

পারভেজকে কোপানোর সময় তাকে ছাড়িয়ে নিতে গেলে আরও তিন ছাত্রলীগ কর্মী হামিদ, রায়হান ও শাব্বির কু`পিয়ে আ`হত করেন।

এর আগে বৃহস্পতিবার পাঁচজনকে কু`পিয়ে গু`রুতর আ`হত করেন আমিন। এর আগে গত মঙ্গলবার কেরানীহাট এলাকায় গরু বাজারের সামনে ছাত্রলীগ কর্মী তারেক ও এক যুবলীগ নেতার ভাতিজাকে মা`রধর করা হয়। 

সাতকানিয়া থানার সেকেন্ড অফিসার মাসুদ জানান, আমিনের বিরুদ্ধে থানায় একটি হ`ত্যা মা`মলাসহ একাধিক মা`মলা রয়েছে। ছাত্রলীগ নেতা পারভেজকে কু`পিয়ে হ`ত্যাচেষ্টার অভিযোগে দায়ের করা মামলায় শুক্রবার তাকে গ্রেফতার করে আদালতে চালান দেয়া হয়েছে।