ডেঙ্গু সম্পর্কিত তথ্য দিয়েছেন ম্যালেরিয়া ও ডেঙ্গু বিষয়ক কর্মসূচির ব্যবস্থাপক

রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশেই ডেঙ্গু পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে।  ডেঙ্গুজ্বরের জীবাণু বহনকারী এডিস মশা সম্পর্কিত বিভিন্ন তথ্য তাই সাধারণ মানুষের জানা খুব জরুরী।

এডিস মশা খালি চোখে দেখে চেনা যায় কিনা, এটি কখন কামড়ায় অথবা এ মশা শরীরের বিশেষ কোনো জায়গায় কামড়ায় কিনা – এসব প্রশ্নসহ বিবিসির এক বিশেষ প্রতিবেদনে উঠে এসেছে ডেঙ্গু ভাইরাস বহনকারী এডিস মশা সংক্রান্ত বেশকিছু তথ্য।

এডিস মশা দেখতে কেমন হয়?

বাংলাদেশের স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ম্যালেরিয়া ও ডেঙ্গু বিষয়ক কর্মসূচির ব্যবস্থাপক এম. এম. আখতারুজ্জামান জানান ডেঙ্গুর জীবাণু বহনকারী এডিস মশা খালি চোখে দেখে সনাক্ত করা সম্ভব।

“এই জাতীয় মশার দেহে সাদা কালো ডোরাকাটা দাগ থাকে, যে কারণে এটিকে টাইগার মশা বলা হয়।” এই জাতীয় মশা মাঝারি আকারের হয়ে থাকে এবং এর অ্যান্টেনা বা শুঙ্গটি কিছুটা লোমশ দেখতে হয়।

আখতারুজ্জামান জানান, “এডিস মশার অ্যান্টেনায় অনেকটা দাড়ির মত থাকে। পুরুষ মশার অ্যান্টেনা স্ত্রী মশার চেয়ে অপেক্ষাকৃত বেশি লোমশ দেখতে হয়।” দেহের ডোরাকাটা দাগ এবং অ্যান্টেনা দেখে এডিস মশা চেনা সম্ভব।

এডিস মশা কি শুধু সকালে কামড়ায়?

শুধুমাত্র দিনের আলো থাকাকালীন সময়েই এডিস মশা কামড়ায় বলে নিশ্চিত করেন ডা. আখতারুজ্জামান।

“সূর্যোদয় থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত এডিস মশা কামড়ায়। তবে কামড়ানোর হার সবচেয়ে বেশি থাকে সূর্যোদয়ের পর দুই-তিন ঘন্টা এবং সূর্যাস্তের আগের কয়েক ঘন্টা।” রাতে এডিস মশা কামড়ায় না বলে নিশ্চিত করেন তিনি।

শুধু কি পায়েই কামড়ায় এডিস মশা?

ডা. আখতারুজ্জামান নিশ্চিত করেন এডিস মশা যে শুধু পায়ে কামড়ায়, এই দাবি ভিত্তিহীন।

“মশা সাধারণত মানুষের পায়েই কামড়ায়, কারণ সাধারণত শরীরে পা’ই অনাবৃত থাকে।

এডিস মশা একবার কামড়ালেই কী ডেঙ্গু হয়? এডিস মশা কামড়ালে যে মানুষের ডেঙ্গুজ্বর হবেই, বিষয়টি এমন নয় বলে জানান ডা. আখতারুজ্জামান।

পরিবেশে উপস্থিত ভাইরাস এডিস মশার মধ্যে সংক্রমিত হলে সেই মশার কামড়ে ডেঙ্গু হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। “এডিস মশা ভাইরাস সংক্রমিত থাকা অবস্থায় মানুষকে কামড়ালে সুস্থ মানুষের ডেঙ্গু হতে পারে।”

ভাইরাসের কারণে হওয়া জ্বরে আক্রান্ত থাকা ব্যক্তিকে এডিস মশা কামড়ালেও মশার মধ্যে ভাইরাস সংক্রমণ হওয়ার সুযোগ থাকে বলে জানান তিনি।

“এডিস মশার একটা বিষয় হলো, তারা সাধারণত একাধিক ব্যক্তিকে কামড়ায়। তাই ভাইরাস জ্বরে আক্রান্ত কোনো ব্যক্তির শরীর থেকে এডিস মশার মধ্যে ভাইরাস সংক্রমণ হওয়ার পর ঐ মশার কামড়ে ডেঙ্গু হয়।”