শোক দিবসে বঙ্গবন্ধু ভবনে ঢুকতে দেয়া হল না কাদের সিদ্দিকীকে

আজ বৃহস্পতিবার বিকাল ৪টার দিকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাতবার্ষিকীর দিনে বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বীরোত্তমকে ধানমণ্ডির ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধু ভবনে প্রবেশ করতে গেলে প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা তার গতিরোধ করেন এবং প্রায় আধা ঘণ্টা দাঁড় করিয়ে রেখে বলেন, “Male are not allowed, Only family members are allowed এরপর বঙ্গবীর সেখান থেকে ফিরে আসেন।

এ ঘটনায় দলটির সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান বীরপ্রতীক তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়ে বলেন, ধানমণ্ডির বাড়ি শুধু আমাদের নয়, ওই বাড়ি আপনারও। বঙ্গবন্ধুর কনিষ্ঠা কন্যা শেখ রেহানা বঙ্গবীরকে এ কথা বলার পর থেকে বেশ কয়েক বছর ধরেই কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বীরোত্তম ১৫ আগস্ট বিকালে বঙ্গবন্ধু ভবনে যান।

তিনি বলেন, সেখানে আসরের নামাজ আদায় করে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার স্থানের কাছে কিছুক্ষণ অবস্থান করেন।

হাবিবুর রহমান বলেন, গত বছরও বঙ্গবন্ধু ভবনে প্রবেশ করতে গেলে প্রথমে বঙ্গবীরকে ফিরিয়ে দেয়া হয়। পরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপে তাকে প্রবেশ করতে দেয়া হয়।

তিনি বলেন, একদিকে সরকার মুজিববর্ষ ঘোষণার মাধ্যমে দল-মত নির্বিশেষে বঙ্গবন্ধুকে যথাযথ মর্যাদা দেয়ার আহ্বান জানায়, অন্যদিকে তার হ`ত্যার একমাত্র স`শস্ত্র প্রতিবাদ করে ১৬ বছর যিনি নির্বাসনে ছিলেন সেই বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকীর মতো মানুষকে বঙ্গবন্ধু ভবনে প্রবেশে বাধা দেয়।

আরও পড়ুন: মুসলিমরা স্বাধীনতা যু`দ্ধে বিশ্বের বিশাল ও সেরা সেনাবাহিনীকেও পরাজিত করেছে : ইমরান খান

তিনি আরও বলেন, সরকারের এমন আচরণে প্রতীয়মান হয় যে, সরকারেরই একটা অংশ বঙ্গবন্ধুকে সরকারি বা দলীয় সম্পদ হিসেবে রাজনৈতিকভাবে ব্যবহার করতে চায়, যা কোনো দেশপ্রেমিক মানুষের কাম্য নয়।