ক্যাপশনে অতিরঞ্জন কিন্তু ঘটনা সত্য

[su_dropcap]গ[/su_dropcap]তকাল থেকেই বিভিন্ন নিউজে ও ফেসবুকের গ্রুপে এই ছবিসহ আরও ছবি ভাইরাল হয়েছে। ছবির ক্যাপশনে লেখা ছিল ‘এটি কনভোকেশনের সেরা ও শ্রেষ্ঠ ছবি। নিশ্চিত সে পৃথিবীর সব থেকে সুখী পিতা, নিজে রিকশা চালিয়ে সন্তানকে পড়িয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগে। স্যালুট গর্বিত পিতা ও তাঁর সন্তানকে।’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫১ তম সমাবর্তন উপলক্ষে অপরাজেয় বাংলার সামনে থেকে ছবি গুলো তুলেন একজন। নাম শাহরিয়ার সোহাগ।

ছবিতে দেখা যাচ্ছে একজন গ্রাজুয়েট তার গাউন ও হ্যাট একজন রিকশা ওয়ালাকে পড়িয়ে স্যালুট করছেন। দেখেই মনে হয় সন্তান তার বাবাকে স্যালুট করছেন। এমন ছবি দেখলেই মনটা ভরে যায়।

ছবিতে লাল পাঞ্জাবী পরা তরুণের নাম লিটন মুস্তাফিজ। লিটনের ফেইসবুক আইডি থেকে জানা যায়, উনি যখন সবার সাথে আনন্দ করছিলেন তখন পাশে বসা এই রিকশাওয়ালা তাদের দিকে তাকিয়ে ছিলেন। উনার কাছে মনে হয়েছে প্রতিটি পিতাই মহান। খেটে খাওয়া এমন পিতার জন্যই তারা ঢাবিতে পড়েছেন। এই পিতারাই আসল সৈনিক। তাই শ্রদ্ধায় আর সম্মানে এই রিক্সাওয়ালাকে তিনি এই সম্মান দেখালেন কারণ তিনিও যে গ্রাম থেকে উঠে আসা সন্তান।

ভাল থাকুক লিটন মুস্তাফিজরা, ভাল থাকুক সকল পিতারা।