২৭১ রানে প্রথম দিন পার করলো আফগানিস্তান

চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে সিরিজের একমাত্র টেস্টের প্রথম দিন বাংলাদেশি বোলারদের ঘাম ঝরিয়ে ছেড়েছেন আফগান ব্যাটসম্যানরা। দিন শেষে সফরকারী দলের সংগ্রহ ৯৬ ওভার শেষে ৫ উইকেটে ২৭১ রান।

এই টেস্টে বিশেষজ্ঞ কোনো পেসার ছাড়াই খেলতে নেমেছে বাংলাদেশ। তবে টাইগারদের স্পিন আক্রমণে ভড়কে না গিয়ে নিজেদের খেলাটাই খেলছে আফগানিস্তান। দারুণ এক সেঞ্চুরি করে আউট হন রহমত শাহ। সেঞ্চুরির পথে আছেন আসঘর আফগানও।

জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে বাংলাদেশি স্পিনাররা প্রথম দিনটা সেভাবে স্পিন বিষ ছড়াতে পারেননি। দেয়াল হয়ে দাঁড়ান রহমত শাহ। দলীয় ১৯ রানের মাথায় ক্রিজে আসা আফগান এই ব্যাটসম্যান ১৯৭ রান পর্যন্ত উইকেটেই কাটিয়ে দেন, গড়েন একটার পর একটা জুটি। সেই সঙ্গে তুলে নেন দুুর্দান্ত এক সেঞ্চুরিও।

শেষ পর্যন্ত রহমতের প্রতিরোধ ভাঙেন বাংলাদেশের তরুণ স্পিনার নাইম হাসান। আগের বলে দারুণ এক বাউন্ডারিতে সেঞ্চুরি পূরণ করেন রহমত, পরের বলেই তাকে ঘূর্ণিফাঁদে ফেলেন এই অফস্পিনার। প্রথম স্লিপে সৌম্য সরকারের সহজ ক্যাচ হয়ে ফেরেন আফগান টেস্ট ইতিহাসের প্রথম সেঞ্চুরিয়ান। ১৮৭ বলে গড়া তার ১০২ রানের ইনিংসটি ছিল ১০ বাউন্ডারি আর ২ ছক্কায় সাজানো।

তৃতীয় বলে রহমত, ষষ্ঠ বলে এসে আরও এক উইকেট হারিয়ে বসে আফগানিস্তান। নাইমের ঘূর্ণিতে এবার কুপোকাত মোহাম্মদ নবী (০), ফেরেন পরিষ্কার বোল্ড আউটে। তাতে দুশর আগেই (১৯৭ রানে) ৫ উইকেট হারিয়ে কিছুটা বিপদে পড়েছিল সফরকারীরা।

তবে ষষ্ঠ উইকেটে আবারও টাইগারদের বোলারদের হতাশা উপহার দিয়েছেন দুই ব্যাটসম্যান আসঘর আফগান আর আফসার জাজাই। দিন শেষে তারা অবিচ্ছিন্ন আছেন ৭৪ রানে। আফগান ৮৮ আর আফসার ৩৫ রান নিয়ে দ্বিতীয় দিনে খেলতে নামবেন।

এর আগে টস জিতে ব্যাটিং করতে নেমে কচ্ছপগতিতে শুরু করে আফগানরা। ১২.২ ওভারের উদ্বোধনী জুটিতে রান আসে মাত্র ১৯। ইহসানউল্লাহকে (৯) বোল্ড করে এই জুটিটি ভাঙেন তাইজুল ইসলাম। তারই দ্বিতীয় শিকার ইব্রাহিম জাদরান (২১)।

৩৩তম ওভারে বল হাতে নিয়েই উইকেটের দেখা পান মাহমুদউল্লাহ। ১৪ রান করা হাসমতউল্লাহ শহীদিকে সৌম্য সরকারের ক্যাচ বানান তিনি। ৭৭ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে ধুঁকছিল আফগানিস্তান। সেখান থেকে চতুর্থ উইকেটে দুর্দান্ত প্রতিরোধ।

আসঘর আফগানকে নিয়ে এই জুটিতে ১২০ রান যোগ করেন রহমত শাহ। তিনি ফেরার পর নবীকেও দ্রুত সাজঘর দেখিয়ে দলকে স্বস্তি এনে দিয়েছিলেন নাইম। কিন্তু ষষ্ঠ উইকেট জুটিতে আফগানদের প্রতিরোধ সেই স্বস্তিকে অস্বস্তিতে রূপ দিয়েছে।

বাংলাদেশের পক্ষে দুটি করে উইকেট নিয়েছেন নাইম হাসান আর তাইজুল ইসলাম। একটি উইকেট মাহমুদউল্লাহর।