কথা রাখলেন রশিদ খান

বাংলাদেশের বিপক্ষে চট্টগ্রাম টেস্টে ঐতিহাসিক জয় পেতে মাত্র ৪টি উইকেট প্রয়োজন ছিল আফগানিস্তানের। কিন্তু বৃষ্টির কারণে আজ পঞ্চম দিনের বেশিরভাগ সময় খেলা বন্ধ থাকল।

দুপুর একটায় মাঠে বল গড়ানোর ২.১ ওভার পর আবারও বন্ধ হয় খেলা। শেষে বিকাল ৪:২০ মিনিটে আবার খেলা শুরু হলে ভেলকি দেখাতে শুরু করেন আফগান স্পিনাররা। মাত্র ১৮.৩ ওভার টিকতে ব্যর্থ হয়ে হেরে যায় বাংলাদেশ!

আজ সোমবার চট্টগ্রামে বৃষ্টির মাঝে মাঠে ঘুরতে ঘুরতে রশিদ খান বলেছিলেন, একটা সেশন খেলতে পারলেই তারা জিতে যাবে। এর জন্য নিদেনপক্ষে এক ঘণ্টা সময় তিনি চেয়েছিলেন বাংলাদেশের বাকী চার উইকেট তুলে নিতে। প্রকৃতিদেবী আফগান অধিনায়ককে সেই সুযোগ দিলেন নিজেকে প্রমাণ করার। সুযোগটা পুরোপুরি কাজে লাগালেন আফগান অধিনায়ক। বাংলাদেশ হারাল তাদের সর্বশেষ চার উইকেট। ১৯ বছর ধরে টেস্ট খেলা বাংলাদেশের বিপক্ষে এক ঐতিহাসিক জয় তুলে নিল আফগানিস্তান!

শেষ বিকেলে খেলা শুরু হলে দুই প্রান্ত থেকে রশিদ আর জহির খান বোলিং আক্রমণ শুরু করেন। সাকিবকে (৪৪) আউট করে সবচেয়ে বড় সাফল্য উপহার দেন জহির।

এরপর শুরু হয় রশিদ খানের ভেলকি। একে একে তুলে নেন মেহেদী মিরাজ (১২) এবং তাইজুল ইসলামকে (০)। ২ ওভারের মতো বাকী থাকতে এই বিশ্বসেরা লেগ স্পিনার স্বীকৃত ব্যাটসম্যান সৌম্য সরকারকে (১৫) ইব্রাহিম জারদানের তালুবন্দি করতেই শুরু হয়ে যায় আফগানদের বিজয়োল্লাস।

শেষ তিন উইকেট একাই তুলে নিয়ে নিজের দেওয়া কথা রাখলেন আফগান স্পিন সেনসেশন রশিদ খান। বৃষ্টিও হার থেকে সাকিবদের রক্ষা করতে পারল না। ৩৯৮ রানের বিশাল টার্গেটে খেলতে নেমে ১৭৩ রানেই প্যাকেট হয়ে গেল সাকিব অ্যান্ড কোং। ২২৪ রানের বিশাল জয় পেল আফগানিস্তান।