ভারতের আইন আক্রান্ত করলে চুপ থাকব না: মির্জা ফখরুল

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীল বলেছেন, ভারতের নাগরিক পঞ্জি (এনআরসি) ও নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন (সিএবি) বাংলাদেশকে আক্রান্ত করলে বিএনপি অবশ্যই কথা বলবে। পাশের দেশে অভ্যন্তরীণ ব্যাপার নিয়ে আমরা মাথা ঘামাতে চাই না। কিন্তু ওইখানে এমন আইন যদি পাস হয়, সে আইন যদি আমাকে আক্রান্ত করে, আমাকে যদি সমস্যায় ফেলে দেয় তাহলে তো সেই কথা বলার অধিকার অবশ্যই আমাদের আছে।

তিনি বলেন, আজকে তারা এনআরসি করেছে কোনো আপত্তি নেই আমাদের। সেই এনআরসিতে বাংলাদেশের মানুষের কথা বার বার বলা হচ্ছে যে বাংলাদেশের মানুষ অবৈধভাবে ভারতে প্রবেশ করেছে তাদেরকে ফেরত পাঠানো হবে। সেটা আমরা কোনোমতেই মেনে নিতে পারি না। দুর্ভাগ্য আমাদের আজকে এই সরকার এ বিষয়ে কোনো রকমের গুরুত্ব দেয় না। গতকাল (শনিবার) দুপুরে গুলিস্তানের মহানগর নাট্যমঞ্চে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শরিক দল জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জেএসডির কাউন্সিলে তিনি এসব কথা বলেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, অলরেডি আসামে ১৯ লাখ অবৈধ বলেছে, আজকে সেটা নিয়ে খোদ ভারতে বিদ্রোহ শুরু হয়েছে, বিক্ষোভ শুরু হয়েছে। তারা এই ধরনের ভারত দেখতে চায় না। যেখানে ধর্মে ধর্মে বিভেদ সৃষ্টি হবে, সাম্প্রদায়িকতা সৃষ্টি হবে। আমরা খুব পরিস্কার করে বলতে চাই যে, আমরা সা¤প্রদায়িকতায় বিশ্বাস করি না। আমরা সকল ধর্মের স্বাধীনতায় বিশ্বাস করি, আমরা আমাদের মানুষকে অন্য দেশে পাঠিয়ে দিতে চাই না। সেখান থেকে অন্যায়ভাবে বাংলাদেশী নাম করে ফেরত পাঠানো হবে সেটা আমরা কোনো মতেই মেনে নিতে পারি না।

তিনি বলেন, দুর্ভাগ্য আমাদের আজকে এই সরকার এ বিষয়ে কোনো রকমের গুরুত্ব দেয় না। তাদের ব্যর্থতার কারণে এই সমস্যা সৃষ্টি হয়েছে। আর এই সরকার যে, এটা তাদের (ভারত) অভ্যন্তরীন বিষয়। বাংলাদেশ সরকারের পররাষ্ট্র মন্ত্রী এখন বলছে, আমরা নেবো পুশ-ইন করবে যাদেরকে তাদের আমরা ফেরত নেবো। কী দুর্ভাগ্য। অত্যন্ত সুপরিকল্পিতভাবে বাংলাদেশকে একটা দুযোর্গময় ভুখন্ডে পরিণত করতে চলেছে। একদিকে রোহিঙ্গা, অন্যদিকে এখন আমাদের বিরাট সীমান্ত দিয়ে যদি বাংলাদেশী বলে পুশ-বেক করা হয়- তাহলে এদেশের অবস্থা কী দাঁড়াবে আপনারা সহজে বুঝতে পারেন।

সরকারের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ তুলে মির্জা ফখরুল বলেন, আজকে দুর্নীতি চরম পর্যায়ে চলে গেছে। প্রতিটি ক্ষেত্রে, প্রতিটি জায়গায় তারা দুর্নীতি করছে। অন্যদিকে তারা পুরোপুরিভাবে বাংলাদেশকে একটা গিনিপিগের মধ্যে পরীক্ষাগার তৈরি করছে। এটা আমাদের রুখে দাঁড়াতে হবে।

গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনার আন্দোলন জোরদার করতে সকল দলের ঐক্যের কথা উল্লেখ করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, এই ফ্যাসিস্ট সরকারকে সরাতে হবে। এজন্য আমরা শুধু ঐক্যফ্রন্ট নয়, অন্যান্য জোটগুলো নয়, আমাদের সমস্ত দেশের মানুষকে এক করে, দেশের সমস্ত গণতন্ত্র বিশ্বাসী দলগুলোকে এক করে লড়াই করতে হবে, সংগ্রাম করতে হবে এবং দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে হবে। কারণ তিনি হচ্ছেন গণতন্ত্রের প্রতীক, সংগ্রামের প্রতীক। তাকে মুক্ত করে আমাদের সংগ্রাম জয় করতে সক্ষম হবে। আমরা বিশ্বাস করি আজকে আমরা সবাই যদি ঐক্যবদ্ধ হই, জনগণ যদি ঐক্যবদ্ধ হয় তাহলে কোনো স্বৈরশাসনই, কোনো একনায়কই ক্ষমতায় টিকে থাকতে পারবে না।