ঘূর্ণিঝড় ‘তিতলি’: সমুদ্র বন্দরকে ৪ নম্বর স্থানীয় হুঁশিয়ারি সংকেত

ঘূর্ণিঝড় ‘তিতলি’ কাল শেষরাতে বা ভোরের দিকে উপকূলে আঘাত আনতে পারে। এ সময় উপকূলে বৃষ্টি হতে পারে। ঝড়টি এখনও ৮৭০ কিলোমিটার দূরে অবস্থান করছে, তাই এটি কোন দিকে মোড় নেয় তা এই মুহূর্তে বলা যাচ্ছে না।

এ কারণে চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মংলা এবং পায়রা সমুদ্র বন্দরকে ৪ নম্বর স্থানীয় হুঁশিয়ারি সংকেত দেখিয়ে যেতে বলেছে আবহাওয়া অধিদফতর। 

আবহাওয়াবিদ মুহাম্মদ আবুল কালাম মল্লিক জানান, গতিপ্রকৃতি বলছে ঝড়টি ভারতের অন্ধ্রপ্রদেশের দিকে মুখ করে আছে। তবে এটি যখন স্থলভাগে পৌঁছাবে তখন এর প্রভাব বাংলাদেশেও পড়তে পারে।

আহাওয়া বিভাগ ৭ নম্বর বুলেটিনে জানিয়েছে, পশ্চিম-মধ্য বঙ্গোপসাগর ও পূর্ব-মধ্য বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত গভীর নিম্নচাপটি পশ্চিম দিকে সামান্য অগ্রসর হয়ে একই এলাকায় অবস্থান করছে।


নিম্নচাপ কেন্দ্রের ৫৪ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসে একটানা গতিবেগ ঘণ্টায় ৬২ কিলোমিটার, যা দমকা ও ঝড়ো হাওয়া আকারে ৮৮ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। নিম্নচাপ কেন্দ্রের কাছে সাগর উত্তাল রয়েছে।


এ অবস্থায় দেশের তিনটি সমুদ্রবন্দর ও কক্সবাজার সমুদ্রসৈকত এলাকায় ২ নম্বর দূরবর্তী সতর্কতা সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থিত মাছ ধরার নৌকাগুলোকে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত উপকূলের কাছাকাছি সাবধানে চলাচল করতে বলা হয়েছে। চট্টগ্রামের পাহাড়ে বাসিন্দাদের সরে যেতে বলা হয়েছে।