এসিল্যান্ড সাইয়েমা হাসানকে প্রত্যাহার

উপজেলা সহকারী কমিশনার-ভূমি (এসিল্যান্ড) সাইয়েমা হাসান যশোরের মণিরামপুরে তিন বৃদ্ধকে কান ধরিয়ে ছবি তোলার ঘটনায় তুমুল সমালোচনার মুখে পরেন। পরে তাকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। সরকারি ছুটি শেষে অফিস খোলার পরপরই এই কর্মকর্তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা করাসহ সর্বোচ্চ শাস্তিমূলক ব্যবস্থাও নেয়া হবে।

আজ (শনিবার) জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সচিব শেখ ইউসুফ হারুন এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, ‘মনিরামপুরের যে তিনজন বয়োজ্যেষ্ঠ নাগরিকের সঙ্গে দুঃখজনক ও অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটেছে, সেজন্য প্রশাসনের সর্বোচ্চ পর্যায় থেকে আমরা দুঃখ প্রকাশ করছি।’

খুলনা বিভাগীয় কমিশনার ড. মু. আনোয়ার হোসেন হাওলাদার বলেন, ‘সাইয়েমা হাসানকে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় প্রত্যাহার করেছে। তার স্থানে একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পাঠানো হয়েছে।’

করোনাভাইরাস মোকাবিলায় জনসমাগম নিয়ন্ত্রণে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাইয়েমা হাসানের নেতৃত্বে শুক্রবার বিকাল থেকে ভ্রাম্যমাণ আদালত বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে মনিরামপুর উপজেলার চিনাটোলা বাজারে অভিযানের সময় ভ্রাম্যমাণ আদালতের সামনে পড়েন প্রথমে দুই বৃদ্ধ। এর মধ্যে একজন বাইসাইকেল চালিয়ে আসছিলেন। অপরজন রাস্তার পাশেই বসে কাঁচা তরকারি বিক্রি করছিলেন। তবে তাদের মুখে মাস্ক ছিল না।

পুলিশ এ সময় ওই দুই বৃদ্ধকে ভ্রাম্যমাণ আদালতে হাজির করলে সাইয়েমা হাসান শাস্তি হিসেবে তাদের কান ধরিয়ে দাঁড় করিয়ে রাখেন জনসম্মুখে। শুধু তাই নয়, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিজেই তার মোবাইল ফোনে এ চিত্র ধারণ করেন। পরবর্তীতে আরও এক ভ্যানচালক বৃদ্ধকেও একইভাবে কান ধরিয়ে দাঁড় করিয়ে রাখেন তিনি।

পরে শুক্রবার রাতেই এ ছবি ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নিন্দা ও সমালোচনার ঝড়ে উঠে।

এসি ল্যান্ড সাইয়েমা হাসান স্থানীয় সাংবাদিকদের কাছে বৃদ্ধদের এ শাস্তি দেয়ার সত্যতা স্বীকার করেন।