সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে চিরকাল বেঁচে থাকবেন আইয়ুব বাচ্চু

[su_heading size=”15″]আইয়ুব বাচ্চুর মত বিরাট রক স্টার বাংলা গা‌নে আবার ক‌বে জন্ম নি‌বে! তি‌নি আর ফির‌বেন না। ই‌উনিক হ‌য়ে থাক‌বেন বাংলা রক গা‌নে। বিদায় মা‌য়ে‌স্ত্রো!’[/su_heading]

আইয়ুব বাচ্চু। ছবি: ইন্টারনেট

আইয়ুব বাচ্চু যখন মারা যান হয়তো এদেশ তখনও দিনের শুরুর প্রস্তুতি নিয়ে ব্যস্ত। প্রায় নিঃশব্দে চলে গেলেন আমাদের প্রিয় আইয়ুব বাচ্চু। তাঁর মৃত্যুকে ঘিরেই মানুষ পার করছে ১৮ অক্টোবর। এদিনটা না থাকলে কী এমন হতো! সোশ্যাল মিডিয়ায় আইয়ুব বাচ্চুকে ঘিরে তৈরি হচ্ছে শোকপ্রবাহ।

নাট্যকার মাসুম রেজা দৈনিক ইত্তেফাককে বলেন, ‘আইয়ুব বাচ্চু বাংলাদেশের ব্যান্ড জগতের অন্যতম পথিকৃৎ। তার মৃত্যুতে এই জগতে বিশাল এক শূন্যতার সৃষ্টি হবে।’ তিনি আরো বলেন, এই মহান শিল্পীর গুণ শুধু সংগীতেই নয়, মানুষের সঙ্গে মেশার দারুণ এক ক্ষমতা ছিলো তার। আসরে প্রাণবন্ত থাকতেন তিনি। এই মানুষটাকে আজীবন মিস করবো।

কথা সাহিত্যিক আনিসুল হক ফেসবুকে লিখেছেন, আহা, আমাদের আইয়ুব বাচ্চু ভাই। তার ব্যবহার ছিল গুড়ের মতো মিষ্টি। এত ভালো একটা মানুষ। আমি বোধ হয় একমাত্র তারই পায়ে হাত দিয়ে কদমবুসি করেছিলাম এই ঢাকা শহরে।

অভিনেতা চঞ্চল চৌধুরী লিখেছেন, এই মানুষটা নেই??? মানতে পারছি না…

কলকাতার গীতিকার ও গায়ক অনুপম রায় বলেন, বাচ্চু ভাই-এর (আয়ুব বাচ্চু) এভাবে হঠাৎ করে চলে যাওয়াটা মেনে নেওয়া কঠিন। বাংলা গান চিরদিন মনে রাখবে এই চমৎকার গুণী মানুষটিকে।

কবি, গদ্যকার মৃদুল মাহবুব বলেন, ‌শিউ‌লি ফুল ঝ‌রে গে‌লে আবার একই রূ‌পে, র‌ঙে, ঘ্রা‌ণে নতুন শিউ‌লি ফুল ফে‌া‌টে প্র‌তি‌দিন সকা‌লে। অনন্তকাল গোলপই ফুট‌তে থা‌কে গোলা‌পের ব‌নে। মানুষও তেমন ফু‌লের মত। ম‌রে গে‌লে অাবার জন্ম নেয়। জন্ম ও মৃত্যু অনন্ত। কিন্তু কিছু জীবন চ‌লে গে‌লে আর ফে‌রে না। রি‌প্লেস হয় না, ফু‌লের বদ‌লে ফুল, মানু‌ষের বদ‌লে একই মানুষ আর আ‌সে না। আইয়ুব বাচ্চুর মত বিরাট রক স্টার বাংলা গা‌নে আবার ক‌বে জন্ম নি‌বে! তি‌নি আর ফির‌বেন না। ই‌উনিক হ‌য়ে থাক‌বেন বাংলা রক গা‌নে। বিদায় মা‌য়ে‌স্ত্রো!

প্রচ্ছদশিল্পী চারু পিন্টু লিখেছেন, সকালবেলা এত মর্মান্তিক সংবাদ শোনার জন্য অপেক্ষা করিনি। আরেকটি নক্ষত্র খসে পড়লো। বাংলাদেশের জনপ্রিয় ব্যান্ড এলআরবির দলনেতা ছিলেন আইয়ুব বাচ্চু। ষাটের দশকে চট্টগ্রামের এক সম্ভ্রান্ত পরিবারে তাঁর জন্ম। নব্বই দশ থেকে এই সময় অবধি বাংলা কাঁপনো এই শিল্পীকে বাংলাদেশ চিরদিন মনে রাখবে।

কবি ইমতিয়াজ মাহমুদ বলেন, আমি অনেক ব্যথা সয়ে, ছলছল চোখের জলে, তোমার (আইয়ুব বাচ্চু) চলে যাওয়া দেখেছি…

কবি ও সাংবাদিক রুহুল মাহফুজ জয় বলেন, ২০১৮ সালে ১৮ অক্টোবর না থাকলে ভাল হতো। আইয়ুব বাচ্চু আর নেই! কত স্মৃতি মানুষটার সাথে…